kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নদীভাঙনে নিঃস্ব লাখো মানুষ

মহাপরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে আসুন

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



নদীভাঙনে নিঃস্ব লাখো মানুষ

দেশে লাখ লাখ মানুষের দারিদ্র্যের অন্যতম কারণ নদীভাঙন। প্রতিবছর প্রায় তিন লাখ পরিবার নদীভাঙনে ঘরদোর হারায়।

নদীভাঙনের বার্ষিক আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৫০ কোটি ডলার। প্রতিবছর নদীতে বিলীন শত শত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের বেশির ভাগ কোনো দিনই আর পড়ালেখার সুযোগ পায় না। ফলে জনসংখ্যার একটি বড় অংশ ছিন্নমূল ও শিক্ষাবঞ্চিত হয়ে বেড়ে ওঠে। জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রাখার বদলে তাদের অনেকে বোঝা হয়ে দাঁড়ায়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নদীভাঙন রোধে আমাদের মহাপরিকল্পনা নেই। অবাধে ভরাট, দখল ও বালু উত্তোলনসহ অনেক অনাচারও নদীশাসনকে ব্যাহত করছে। গত চার দশকে নদীশাসন খাতে সরকার খরচ করেছে প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা। গৃহীত প্রকল্পের সংখ্যা কয়েক শ। এর পরও কার্যকর সমাধান না আসার জন্য বিশেষজ্ঞরা মহাপরিকল্পনা বা মাস্টারপ্ল্যান না থাকাকে দায়ী করছেন।

পানি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মাস্টারপ্ল্যান না থাকায় একই স্থানের জন্য বারবার প্রকল্প নিতে হয়। আর প্রকল্প পরিকল্পনা, অনুমোদন অর্থ বরাদ্দ, দরপত্র আহ্বানের প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয় বলে কাজ শুরু করতেও অনেক সময় লেগে যায়। সেই সঙ্গে অনিয়ম তো আছেই। অনেক ক্ষেত্রেই কাজের গুণগত মানের চেয়ে বরাদ্দ অর্থ লোপাটের মচ্ছব চলে। ফলে কাজের কাজ কিছুই হয় না। প্রকল্প বাস্তবায়নে বিদেশনির্ভরতা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে গবেষণা খাতে আমাদের অনেক দক্ষতা বেড়েছে। নিজেদের সমস্যা স্থানীয়ভাবে সমাধান করার মানসিকতাও আমাদের তৈরি করতে হবে। বিদেশি মানেই উন্নত, এ-জাতীয় গতানুগতিক দৃষ্টিভঙ্গির অনেক কুফল রয়েছে।

বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ আমরা এখনো বলি। তবে জালের মতো ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা সেই নদ-নদী কি আগের মতো আছে? ১৯৭৫ সালে আমাদের দেশে নদীপথ ছিল ২৪ হাজার কিলোমিটার। বর্তমানে তা কমে ছয় হাজার কিলোমিটারে নেমে আসার কথা জানা যায়। এ অবস্থার জন্য উজানে পানি প্রত্যাহারের পাশাপাশি আমরাও কম দায়ী নই। খেয়ালখুশিমতো নদী থেকে বালু উত্তোলন অনেক ক্ষেত্রে রাজনৈতিক প্রশ্রয়ে চলে। আমরা তা কেন বন্ধ করতে পারছি না? আমাদের গঠনপ্রকৃতি বিচারে বাংলাদেশ একটি বদ্বীপ। পানি, পলি ও স্রোতের ভারসাম্য রক্ষার মাধ্যমেই আমাদের ভূখণ্ডের অবকাঠামোগত নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এ কাজে অদূরদর্শী হলে, অনাদায় থাকলে পানির ন্যায্য হিস্যা, আমরা ভৌগোলিকভাবে বড় হুমকির মধ্যে পড়ব। তাই সময় থাকতে নিতে হবে যুগোপযোগী মহাপরিকল্পনা। যেহেতু মাঝারি বা ছোট প্রকল্প দিয়ে স্থায়ীভাবে নদীভাঙন রোধ করা যাচ্ছে না, বড় প্রকল্পের দিকে যাওয়ার কথা সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করতে হবে।


মন্তব্য