kalerkantho


জাল সনদে শিক্ষকতা!

উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হোক

২৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে শৃঙ্খলার মধ্যে আনতে সরকারের চেষ্টার অন্ত নেই। উন্নয়ন পরিকল্পনায় শিক্ষা খাত অগ্রাধিকার পাচ্ছে।

বছরের প্রথম দিনেই শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেওয়া হচ্ছে। পাসের হার বেড়েছে। কিন্তু শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে না পারার বড় কারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে মানসম্মত শিক্ষকের অভাব। বিশেষ করে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানসম্মত শিক্ষকের অভাব শিক্ষা বিশেষজ্ঞদের দুশ্চিন্তার প্রধান কারণ। আবার শহরাঞ্চলের তুলনায় গ্রামাঞ্চলে মানসম্পন্ন শিক্ষকের অভাব বেশি। দেশের এমপিওভুক্ত ২৬ হাজার বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় চার লাখ শিক্ষক এমপিওভুক্ত। সরকারের খাত থেকে এই শিক্ষকদের বেতন-ভাতা যায়। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার দায়িত্ব শিক্ষক ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের। গ্রামাঞ্চলের এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ সাধারণত হয়ে থাকে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের পছন্দ অনুযায়ী। যদিও বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেতে হলে শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়। এর পরও পরিচালনা পরিষদের পছন্দই শিক্ষক নিয়োগে প্রাধান্য পেয়ে থাকে। এসব নিয়োগে মোটা অঙ্কের টাকা লেনদেন হয় বলেও অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর যে খবর দিচ্ছে তা রীতিমতো আঁতকে ওঠার মতো। এমপিওভুক্ত চার লাখ শিক্ষকের মধ্যে ৪০ হাজারেরই কোনো না কোনো সনদ জাল বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে।   শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর এরই মধ্যে তিন হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে ৩৭৬ জন শিক্ষকের জাল সনদ পেয়েছে। জাল সনদ নিয়ে যারা শিক্ষকতা করবে তারা শিক্ষার্থীদের কী শেখাবে?

শিক্ষকতা সাধারণ কোনো পেশা নয়, ব্রত। একজন শিক্ষক শুধু পাঠ্যপুস্তক থেকেই পাঠ দেন না, তিনি একজন শিক্ষার্থীকে চরিত্রগতভাবেও আগামী দিনের জন্য তৈরি করে দেন। যে শিক্ষকের সনদ জাল, তিনি কিভাবে নৈতিকতা শিক্ষা দেবেন? কাজেই বিষয়টি খুব গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নিতে হবে। জাল সনদধারী কাউকে শিক্ষার্থীদের সামনে উপস্থাপন করাও একটি অপরাধ। কেউ যদি ইচ্ছাকৃতভাবে জাল সনদ দিয়ে থাকেন, তিনি অবশ্যই অপরাধী হিসেবে বিবেচিত হবেন। আমরা আশা করব শিক্ষার মানের প্রশ্নে কোনো আপস করা হবে না। জাল সনদধারীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য