kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি

নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ব্যবস্থা নিন

৮ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি

দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি কি তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে? গত কয়েক দিনে যে ঘটনাগুলো ঘটেছে, তা যেকোনো সচেতন মানুষকে চরম দুশ্চিন্তাগ্রস্ত করেছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। প্রতিদিনই খুনের ঘটনা ঘটছে।

বাড়ছে আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার। শিশুহত্যাও থেমে নেই। গতকালের কালের কণ্ঠে প্রকাশিত একাধিক অপরাধ তত্পরতার খবর বলে দিচ্ছে, দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি কোন পর্যায়ে গেছে। চকরিয়ায় গুলি ছুড়ে স্কুল ছাত্রী অপহরণ ও লুট, মেহেরপুরের চার্চে ডাকাতি, রাজবাড়ীতে শিশু অপহরণের চেষ্টা, কেরানীগঞ্জে নৈশপ্রহরী, গাজীপুরে গার্মেন্টকর্মী ও বিজয়নগরে যুবক হত্যার ঘটনা ঘটেছে। টঙ্গীতে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে সেপটিক ট্যাংকে মিলেছে যুবকের লাশ। ময়মনসিংহ, জামালপুর, বগুড়া ও হবিগঞ্জেও হত্যার ঘটনা ঘটেছে। জাজিরায় প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত হয়েছেন এক সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক। সখীপুরে বিদ্যালয়ে ঢুকে ছাত্রকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা। চট্টগ্রামে ছেলের সামনে মাকে গলা টিপে হত্যা করে স্বর্ণালংকার লুট করা হয়েছে। স্ত্রীকে ফাঁসাতে ছেলেকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া শিশুর মাকে হত্যাকারী হিসেবে চিহ্নিত করে ফায়দা লোটার অপচেষ্টাও হয়েছে।

সমাজে নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধের অবক্ষয় চরমে। যৌথ পরিবার ভেঙে গেছে। সামাজিক অনুশাসন বলতে কিছু নেই। মানুষ দিন দিন একা হয়ে যাচ্ছে। এক শ্রেণির মানুষ আবার পুলিশ, প্রশাসন, বিচারব্যবস্থা ও মানবিক মূল্যবোধের তোয়াক্কা করে না। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও নৈতিক শিক্ষা কতটা গুরুত্ব পাচ্ছে, তা প্রশ্নসাপেক্ষ। মাদকের ব্যবহার বাড়ছে। অন্যদিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যখন অর্পিত দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয় বা পালন করে না, তখন সমাজের অপরাধীচক্র বেপরোয়া হয়ে ওঠে। বেড়ে যায় অপরাধপ্রবণতা। এর বাইরে রয়েছে আইনি প্রক্রিয়ার জটিলতা। আইনের ফাঁক গলে অপরাধীরা বেরিয়ে আসছে। আবার অপরাধ সংঘটিত করেও অনেকে রাজনৈতিক আশ্রয় পাচ্ছে। বিচারের দীর্ঘসূত্রতাও অপরাধীদের উৎসাহিত করছে। বিলম্বিত বিচার তো বিচারহীনতারই নামান্তর। অপরাধ বিশেষজ্ঞদের মতে, অপরাধীদের শাস্তি না হওয়ার কারণেও অপরাধপ্রবণতা বাড়ে। একটি তথ্য বলছে, দেশে মাত্র ১০ শতাংশ অপরাধীর শাস্তি হয়। বাকিরা রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ, তদন্তের দুর্বলতা, পুলিশের সদিচ্ছার অভাব ও নানা ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতার কারণে গুরুতর অপরাধ করেও পার পেয়ে যায়। এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে হলে সার্বিক পরিবর্তন প্রয়োজন। আাামদের সামাজিক শৃঙ্খল ও শৃঙ্খলা যেমন ফিরিয়ে আনতে হবে, তেমনি মূল্যবোধ গড়ে তুলতে নতুন করে ব্যবস্থা গ্রহণও আজকের বাস্তবতায় জরুরি। একই সঙ্গে অপরাধীদের বিচার দ্রুত ও নিশ্চিত করতে হবে। সবার আগে প্রয়োজন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তত্পরতা। আইনের জটিলতায় কোনো অপরাধী যেন পার পেয়ে না যায় সেদিকেও তীক্ষ দৃষ্টি দিতে হবে। আমরা আশা করব, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি রোধে কার্যকর ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।


মন্তব্য