kalerkantho


শরীর ও মন

টিনে চাই প্রোটিন

বন্ধুরা হুড়মুড়িয়ে বড় হয়ে যাচ্ছে, আর তুমি রয়ে গেলে হ্যাংলা-পাতলা? বডিবিল্ডার না হও, মাপমতো প্রোটিনটা পেলেই হলো। তাহলেই বেঁচে যাবে চারখানা কমন সমস্যা থেকে। হেলথ২৪ডটকম থেকে জানাচ্ছেন ফয়সল আবদুল্লাহ

১৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



টিনে চাই প্রোটিন

ছবি : জাবেদ পাটওয়ারী, মডেল : জাইন

ঘন ঘন ক্ষুধা

তোমার শরীরে প্রোটিনের ঘাটতির প্রথম লক্ষণটাই হলো ঘন ঘন ক্ষুধা লাগা। কী, মিল পাচ্ছ নিজের সঙ্গে? তাহলে ধরেই নাও যে প্রতিদিন ঠিকমতো প্রোটিন পাচ্ছে না তোমার শরীর। আর তোমাদের মধ্যে যারা খেলাধুলায় আছ, তারা নিয়মিত দুধ, ডিম, ডিমের সাদা অংশ, মাংস ও মাছ না খেলে একটু পর পর ক্ষুধার্ত হয়ে পড়বে। একটু বেশি দৌড়ঝাঁপ করলে প্রাণিজ প্রোটিনটাই কাজে আসবে বেশি। আর এমনিতে উদ্ভিজ প্রোটিন সব দিক দিয়েই নিরাপদ।

ক্লান্তিতে সারা দিন

‘উফ, খুব টায়ার্ড লাগছে আজ!’ কথাটা প্রায় প্রতিদিনই বলে ফেলছ? এখানেও প্রোটিন সংকট দায়ী। আর এই ক্লান্তি দূর করতে বেশি বেশি খেয়ে ফেলার পরও দেখা গেল আবার আগের অবস্থা। তাহলে ধরে নিতে হবে, তোমার খাওয়ার রুটিনে প্রোটিনের কমতি পড়েছে।

ব্যায়ামের পর কাহিল

ব্যায়াম করলে শরীর একটু-আধটু দুর্বল হবেই। ব্যথাও হতে পারে অনেক পেশিতে। কিন্তু সেটা যদি দ্রুত কেটে না ওঠে, তবে ধরে নিতে হবে প্রোটিনের ঘাটতিতে ভুগছে পেশি। এ ক্ষেত্রে এক দিন পর্যন্ত যদি কাহিল ভাব থাকে, তবেই নিশ্চিত হবে যে তোমার আরো প্রোটিন চাই। পুষ্টিবিদদের মতে, যারা নিয়মিত ব্যায়াম করছ বা খেলাধুলা করছ, তাদের জন্য শর্করা ও প্রোটিনের অনুপাতটা হবে ৪ : ১। তবেই ব্যায়ামের ফলে যে মাংসপেশি বা টিস্যুর ক্ষয় হয়, সেটা পুষিয়ে নিতে পারবে দ্রুত।

হচ্ছে না মাসল

বাইসেপ ট্রাইসেপ আর সিক্স প্যাক; এসব শুধু সিনেমায় সম্ভব? সব গ্রাফিকসের কারসাজি? নাহ, অহেতুক দোষ দিয়ে লাভ নেই। মাসল বানাতে কাঁচামাল তো লাগবেই। আর প্রোটিন ছাড়া সেটা আর কিছু দিয়েই সম্ভব নয়। কারণ প্রোটিনে আছে অ্যামাইনো এসিড। পেশির বৃদ্ধির একটা বড় রসদ এটি। বলতে পারো, এই এসিডই গোটা শরীরের জন্য লেগোসেটের মতো কাজ করে।



মন্তব্য