kalerkantho


সিজারিয়ানের পরে নরমাল?

ডা. নাদিরা হক

১৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



সিজারিয়ানের পরে নরমাল?

অনেকের ধারণা, একবার সিজারিয়ান সেকশনের (LUCS) মাধ্যমে ডেলিভারি হলে পরবর্তী প্রতিটি প্রেগন্যান্সিতেও সিজারিয়ান সেকশনের প্রয়োজন হয়। এই ধারণা আসলে সঠিক নয়।

প্রকৃতপক্ষে একবার সিজারিয়ান সেকশনের মাধ্যমে ডেলিভারি হলে পরবর্তী প্রেগন্যান্সিতে নরমাল ভ্যাজাইনাল ডেলিভারির (VBAC) ট্রায়াল দেওয়া যায় এবং এ ক্ষেত্রে ৬০-৮০ শতাংশ মায়েরই তেমন কোনো সমস্যা হয় না। অর্থাৎ সফলভাবে নরমাল ডেলিভারি সম্ভব হয়। তবে এ ক্ষেত্রে জেনে নিতে হবে কোন কোন মায়েরা এই ডেলিভারির জন্য উপযুক্ত। এ ছাড়া পূর্ববর্তী সিজারিয়ান অপারেশন এবং বর্তমান প্রেগন্যান্সি সম্পর্কে কিছু তথ্যও জানতে হবে।

 

যাঁদের জন্য প্রযোজ্য

♦    যাঁদের আগে একটি সিজারিয়ান অপারেশন হয়েছে তাঁরা পরবর্তী সময়ে নরমাল ভ্যাজাইনাল ডেলিভারির জন্য ট্রায়াল দিতে পারবেন।

♦    যদি আগে সিজারিয়ান সেকশন এমন কোনো কারণে হয়ে থাকে, যা পুনরাবৃত্তি হওয়ার আশঙ্কা কম। যেমন—গর্ভস্থ বাচ্চার অস্বাভাবিক পজিশন ও প্রেজেন্টেশন, Fetal Distress-সহ নানা কারণে সিজারিয়ান সেকশন হলে বর্তমান প্রেগন্যান্সিতে নরমাল ভ্যাজাইনাল ডেলিভারি ট্রায়াল দেওয়া যাবে। কিন্তু যদি পূর্ববর্তী সিজারিয়ান সেকশন এমন কারণে হয়, যার পুনরাবৃত্তির সম্ভাবনা রয়েছে। যেমন—প্রসবের স্থান অপ্রশস্ত (CPD) সে ক্ষেত্রে নরমাল ট্রায়াল দেওয়া যাবে না।

♦    সিজারিয়ান সেকশনের সেলাই আড়াআড়িভাবে দেওয়া থাকে বলে পরবর্তী প্রেগন্যান্সিতে নরমাল ভ্যাজাইনাল ডেলিভারির জন্য ট্রায়াল দেওয়ার সুযোগ থাকে। এ ক্ষেত্রে সেলাই ফেটে যাওয়ার আশঙ্কা ০.৫-১.৫ শতাংশ। অন্যদিকে ক্লাসিক্যাল সিজারিয়ান সেকশনের ক্ষেত্রে সেলাই ফেটে যাওয়ার আশঙ্কা ৪-৯ শতাংশ।

♦    দুটি প্রেগন্যান্সির মধ্যে অন্তত দুই বছরের বিরতি থাকলে আগের সেলাইয়ের স্থান মজবুত থাকে।

♦    সিজারিয়ান সেকশনের পরবর্তী সময় সেলাইয়ের স্থানে কোনো ইনফেকশন থাকলে সেলাইয়ের স্থান দুর্বল করে ফেলে, যাতে পরবর্তী সময়ে জরায়ু ফেটে যাওয়ার আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়।

♦    বর্তমান প্রেগন্যান্সিতে যদি একটি বাচ্চা থাকে, পজিশন ঠিক থাকে, ওজন তিন কেজির কম থাকে, প্রসবের স্থান প্রশস্ত থাকে, গর্ভফুল নিচে না থাকে, গর্ভথলিতে অতিরিক্ত পানি না থাকে, মায়ের অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপ অথবা ডায়াবেটিস না থাকে তবে এই প্রেগন্যান্সিতে নরমাল ডেলিভারি ট্রায়াল দেওয়া যাবে।

 

সতর্কতা

সব কিছু ঠিক থাকলেই তবে নরমাল ভ্যাজাইনাল ডেলিভারি ট্রায়াল। এ ক্ষেত্রে এই ট্রায়ালের সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে প্রসূতি মাকে অবহিত করতে হবে। মায়েরও দৃঢ় মনোবল থাকতে হবে। এই ডেলিভারি এমন হাসপাতালে ট্রায়াল দিতে হবে, যেখানে প্রয়োজন হলে সঙ্গে সঙ্গে ইমার্জেন্সি সিজারিয়ান সেকশন ব্যবস্থা করা যায়। সেখানে থাকতে হবে মা ও বাচ্চার নিবিড় পরিচর্যার ব্যবস্থা, জরুরি অ্যানেসথেসিওলজিস্ট ও নিউনেটোলজিস্ট, Continuous CT মেশিনের মাধ্যমে বাচ্চাকে সার্বক্ষণিক মনিটরিং প্রভৃতি সুযোগ।

২০-৪০ শতাংশ ক্ষেত্রে নরমাল ভ্যাজাইনাল ডেলিভারি সম্ভব নাও হতে পারে এবং সে ক্ষেত্রে ইমার্জেন্সি সিজারিয়ান অপারেশনের প্রয়োজন হয়।

অন্যদিকে সব নরমাল ভ্যাজাইনাল ডেলিভারির মাধ্যমে শরীরের বাড়তি অস্ত্রোপচার এড়ানো যায়। কেননা শরীরে অস্ত্রোপচারের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে টিস্যু এডহেশন এবং টিস্যু ইনজুরির আশঙ্কা বেড়ে যায়। সিজারিয়ান সেকশনের পর নরমাল ভ্যাজাইনাল ডেলিভারি এসব ঝুঁকি থেকে মুক্ত।

 

লেখক : কনসালট্যান্ট

স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যা বিভাগ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)


মন্তব্য