kalerkantho


ই-হেলথ

২৪ ঘণ্টা স্বাস্থ্য পরার্মশ

জাতীয় স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩

ডা. রাজিবুল ইসলাম   

১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



২৪ ঘণ্টা স্বাস্থ্য পরার্মশ

বাংলাদেশ সরকারের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবার হেল্পলাইন স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ থেকে মিলবে যেকোনো স্বাস্থ্য পরামর্শ। দেশের যেকোনো প্রান্তের নাগরিকগণ এ সেবা পাবেন। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ পেতে যেকোনো অপারেটরের মোবাইল ফোন বা ল্যান্ডফোন থেকে এক বাষট্টি তেষট্টি (১৬২৬৩) নম্বরে কল দিলে কলসেন্টারে নিয়োজিত চিকিৎসকগণ তাত্ক্ষণিক পরামর্শ দেবেন। এর জন্য খরচ হবে প্রতি মিনিট ৬০ পয়সা (+ ভ্যাট)। ১০ সেকেন্ড পালস প্রযোজ্য। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন সর্বপ্রথম এবং সর্ববৃহৎ ২৪ ঘণ্টা মোবাইল হেলথ হেল্পলাইন এটি। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও ইউকে এইডের অর্থায়নে এ সেবা পরিচালনা করছে মোবাইল হেলথ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান সিনেসিস আইটি লিমিটেড।

 

সেবাসমূহ

স্বাস্থ্য বাতায়নের উল্লেখযোগ্য সেবাগুলো হচ্ছে :

♦ সপ্তাহের সাত দিন ২৪ ঘন্টাই অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ প্রদান।

♦ দেশের যেকোনো হাসপাতাল, ক্লিনিক এবং ডাক্তারদের প্রয়োজনীয় তথ্য ও ফোন নম্বর প্রদান।

♦ নিকটবর্তী অ্যাম্বুল্যান্সের জরুরি তথ্য ও বুকিং সুবিধা।

♦ স্বাস্থ্যসেবাবিষয়ক যেকোনো অভিযোগ ও পরামর্শ জানানোর ব্যবস্থা এবং প্রতিকারের পর তা জানিয়ে দেওয়া।

♦ যেকোনো দুর্ঘটনার তথ্য গ্রহণ ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো।

 

কলব্যাকও করা হয়

স্বাস্থ্য বাতায়নের রয়েছে একটি ফেসবুক পেজ (লিংক : https://www.facebook.com/ShasthoBatayon)। এখানে নাম, বয়স, মোবাইল নম্বরসহ কারো স্বাস্থ্যসংক্রান্ত সমস্যা জানালে ১৬২৬৩ নম্বর থেকে প্রতিনিধি নিজেই কলব্যাক করে স্বাস্থ্য পরামর্শ দেন। এখানেও পাওয়া যায় স্বাস্থ্যবিষয়ক নানা সমস্যা সমাধানের টিপস। জানানো যাবে অভিযোগ। এ ছাড়া +৮৮ ০১৫১১৩ ১৬২৬৩ নম্বরে এসএমএসের মাধ্যমেও জনগণের স্বাস্থ্য সমস্যা ও অভিযোগের কথা জানানো যাবে।

 

২৪ ঘণ্টাই অপেক্ষায় থাকেন চিকিৎসকগণ

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ জানান,   চালু হওয়ার পর এ পর্যন্ত ১৫ লাখের বেশি মানুষকে সেবা প্রদান করেছে এ স্বাস্থ্য বাতায়ন। এখন প্রতিদিন পাঁচ হাজারের মতো কল আসছে। ৫০ হাজার কলের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এখানকার চিকিৎসকরা ২৪ ঘণ্টাই ফোনকলের জন্যই অপেক্ষায় থাকেন। প্রতিটি কল গুরুত্বের সঙ্গে দেখে সঙ্গে সঙ্গেই পরামর্শ দেওয়া হয়।

জানা গেছে, এই সেবা আরো বিস্তারের মাধ্যমে দেশের একমাত্র ওয়ান স্টপ হেলথ সলিউশন করার কাজ চলছে।


মন্তব্য