kalerkantho

পুষ্টিতথ্য

আনারসের গুণ

পুষ্টিবিদ আরহাম চৌধুরী   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



আনারসে আছে প্রোটিওলাইটিক এনজাইম, ব্রোমিলেইন, যা প্রোটিন সংশ্লেষণে সহায়তা করে। তবে রান্নায় মিশিয়ে যখন আনারস পরিবেশন করা হয় তখন এর উপকারী অনেক কিছু ধ্বংস হয়ে যায়। তাই আনারস কেটে বা জুস করে খাওয়া বেশি উপকারী।

প্রতি ১০০ গ্রাম আনারসে আছে

►  দৈনন্দিন প্রয়োজনের ১০৫ শতাংশ ভিটামিন সি

►  প্রয়োজনের ৭৬ শতাংশ ম্যাঙ্গানিজ

►  প্রয়োজনের ২০ শতাংশ কপার

►  প্রয়োজনের ১১ শতাংশ ভিটামিন বি ওয়ান

►  প্রয়োজনের সাড়ে ১০ শতাংশ ভিটামিন বি সিক্স

►  প্রয়োজনের ৯ শতাংশ ফাইবার বা আঁশ

►  প্রয়োজনের সাড়ে ৭ শতাংশ ফোলেট

►  প্রয়োজনের ৭ শতাংশ প্যান্টোথেনিক এসিড।

 

স্বাস্থ্যকর ফল

►  বয়সজনিত ম্যাকুলার ডিজেনারেশনের (যেমন বয়সজনিত চোখে কম দেখা) ঝুঁকি কমায়

►  বিটা ক্যারোটিন থাকায় অ্যাজমা প্রতিরোধে কাজ করে

►  পটাসিয়াম ইনটেক বাড়িয়ে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে

►  শরীরে ফ্রির‌্যাডিক্যাল উতপাদনে বাধা দিয়ে ক্যান্সার প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে

►  উচ্চ মাত্রায় ফাইবার থাকায় কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়

►  দৈনিক অনধিক ৩০ গ্রাম পরিমাণ আনারস খেলে টাইপ ওয়ান ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের রক্তে চিনির মাত্রা কমে

►  উচ্চ অ্যান্টি অক্সিডেন্ট (ভিটামিন সি, বিটা ক্যারোটিন, কপার, জিংক, ফোলেট ইত্যাদি) থাকায় বন্ধ্যাত্বের ঝুঁকি কমায়

►  এতে থাকা ব্রোমিলেন এনজাইম ইনফেকশন ও প্রদাহ সারাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে

►  পটাসিয়াম, ভিটামিন সি থাকায় ইসকেমিক হার্ট ডিজিজ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি অনেক কমায়

►  কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমায়

►  সূর্যরশ্মির ক্ষতির হাত থেকে ত্বককে বাঁচায়, ত্বকে বয়সজনিত ভাঁজ ুপড়া ঠেকায়, কোলাজেন তৈরিতে সহায়তা করে।


মন্তব্য