kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আপনার প্রশ্ন বিশেষজ্ঞের উত্তর

বক্ষব্যাধিবিষয়ক বাছাই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শাহেদুর রহমান খান

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



আপনার প্রশ্ন বিশেষজ্ঞের উত্তর

আমার বয়স ৩৯, কাজ করি একটি তাঁতকলে। এখানে কাজ করার আগে শ্বাসকষ্টের কোনো সমস্যা ছিল না।

কিন্তু কয়েক বছর ধরে খুব শ্বাসকষ্টে ভুগছি। এ জন্য ডাক্তার দেখিয়েছি। তিনি আমাকে সালটোলিন ইনহেলার ব্যবহার করতে দিয়েছেন। প্রথম দিকে এটা ব্যবহারে উপকার পাচ্ছিলাম। এখন মনে হচ্ছে, এতে কোনো উপকার হচ্ছে না। আমার এখন কী করা উচিত?

রোকনুজ্জামান, গাউসিয়া, নরসিংদী

আপনি যে পেশায় নিয়োজিত, তাতে শ্বাসকষ্ট হওয়াটা অস্বাভাবিক নয়। কারণ তাঁতকলে প্রচুর তুলা ও আঁশ বাতাসে ভাসে, যা শ্বাসের মাধ্যমে ফুসফুসে যায়। এ জন্য কাজের সময় মাস্ক ব্যবহার করা উচিত। আপনি যতটুকু বর্ণনা করেছেন তাতে মনে হচ্ছে, অ্যাজমাও আছে। বায়ুদূষণের কারণে অ্যাজমার শিকার এখন অনেকেই হচ্ছে। এ জন্য আপনাকে অ্যাজমার চিকিৎসা নিতে হবে। যেহেতু ইনহেলার ব্যবহার করছেন ও তেমন উপকার পাচ্ছেন না, তাই উন্নত চিকিৎসার জন্য বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ দেখানো উচিত। সবচেয়ে ভালো হয় যদি ঢাকায় এসে জাতীয় বক্ষব্যাধি হাসপাতালে যোগাযোগ করেন।

 

আমার বয়স ৪২, এক বছর আগে ফুসফুসে টিউমার ধরা পড়েছে। তখন জানা গিয়েছিল, এটি আসলে ক্যান্সার। এ জন্য ডাক্তারের পরামর্শে কেমোথেরাপি নিচ্ছি। অন্য একজন ক্যান্সার বিশেষজ্ঞকে দেখালে তিনি বলেছেন, টিউমারের আকার ছোট করতে চাইলে আগে রেডিওথেরাপি নিতে হবে। এ অবস্থায় আমি কী ধরনের চিকিৎসা নেব, সেটা নিয়ে মানসিক অশান্তিতে আছি।  

ইদ্রিস হোসেন মুন্সী, গজারিয়া, মুন্সীগঞ্জ

 

টিউমার যেহেতু ক্যান্সার হিসেবে শনাক্ত হয়েছে, তাই এর যথাযথ চিকিৎসা অতি দ্রুত করানো উচিত। এ জন্য ক্যান্সার বিশেষজ্ঞদের মতামত বেশি জরুরি। অনেক সময় টিউমারের আকার বেশি বড় হলে রেডিওথেরাপি দিয়ে আকার ছোট করতে হয়। আপনার টিউমারটি ঠিক কী আকারের সে সম্পর্কে ধারণা না দেওয়ায় রেডিওথেরাপি আগে দিতে হবে কি না তা বলতে পারছি না। আপনি ক্যান্সার হাসপাতালে যোগাযোগ করতে পারেন।

 

বয়স ৩২, পেশাগত জীবনে শিক্ষকতা করি। বহুদিন ধরে কাশির সমস্যায় ভুগছিলাম। ছয় মাস আগে পরীক্ষা করে জানতে পারি ফুসফুসের টিবি বা যক্ষ্মা হয়েছে। এ জন্য স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে টিবির ওষুধ নেওয়া শুরু করি। কিন্তু এখনো মাঝেমধ্যে কাশির সঙ্গে রক্ত যায়। অনেকেই বলছে, ওষুধ ঠিকমতো কাজ করছে না। ওদিকে আমার বাড়িতে অন্যরাও আতঙ্কে আছে, তারা মনে করছে, এ রোগ তাদেরও হতে পারে।

শফিউল আজম, দোহার, ঢাকা

একজন রোগীর চিকিৎসা চলা অবস্থায় টিবির ওষুধ যথাসময়ে সেবন ও পূর্ণ সময় ধরে, সাধারণত ছয় মাস থেকে আট মাস পর্যন্ত নেওয়া অত্যন্ত জরুরি। চিকিৎসা নেওয়ার সময় প্রথম রক্ত যাওয়া লক্ষণ হিসেবে থাকলেও মাঝেমধ্যে ও শেষের দিকে এই লক্ষণগুলো সাধারণত থাকে না। তবে অনেকেরই চিকিৎসায় টিবি রোগ ভালো হয়ে যাওয়ার পরও রক্ত যায়। এ ক্ষেত্রে আরো কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে হয় অন্য কোনো কারণ আছে কি না। ফুসফুসের টিবি কাশির মাধ্যমে অন্যদের আক্রান্ত করতে পারে। তাই রোগাক্রান্ত অবস্থায় ব্যক্তিগত ব্যবহার্য জিনিসপত্র আলাদা রাখা উচিত।

 

বয়স ৪৫, এমনিতে শারীরিক অন্য কোনো অসুবিধা বোধ না করলেও যখন কোনো ভারী কাজ বা একটু দৌড়ঝাঁপ করি, তখনই শ্বাসকষ্ট হয়। মাঝেমধ্যে ভেন্টোলিন জাতীয় ওষুধ খেলে ভালো বোধ করি। স্থানীয় চিকিৎসক বলেছেন, হাঁপানি রোগে আক্রান্ত হয়েছি। কিন্তু হাঁপানির সব লক্ষণ তো আমার মধ্যে নেই। কী করব?

নাজনীন সুলতানা, ঝিলটুলী, ফরিদপুর

অ্যাজমায় আক্রান্ত হলে সব সময় যেসব লক্ষণ থাকে তা নয়। আপনি যতটুকু বর্ণনা করেছেন তাতেই মনে হচ্ছে, রোগটি সম্ভবত অ্যাজমাই। যথাসময়ে চিকিৎসা নিলে রোগটি ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণে থাকে। সারা জীবন ভালো থাকা যায়। তাই দেরি না করে দ্রুত রোগ নির্ণয় করে চিকিৎসা করতে হবে। এ জন্য একজন বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ দেখান। প্রয়োজনে জাতীয় বক্ষব্যাধি হাসপাতালের অ্যাজমা সেন্টারেও আসতে পারেন।

 


মন্তব্য