kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আপনার প্রশ্ন বিশেষজ্ঞের উত্তর

অর্থোপেডিকবিষয়ক বাছাই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ট্রমাটোলজি অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন (পঙ্গু হাসপাতাল), ঢাকার সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. জাহাঙ্গীর আলম

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



আপনার প্রশ্ন বিশেষজ্ঞের উত্তর

আমার বয়স ৩৮। কলসি দিয়ে পুকুর থেকে প্রায়ই পানি আনতে হয়।

এক দিন পা পিছলে ভরা কলসিসহ পড়ে গিয়ে ডান পায়ে ব্যথা পাই। কিছুক্ষণ পর ওই স্থান কিছুটা ফুলে যায় ও ব্যথা হয়। স্থানীয় ডাক্তার দেখালে তিনি বরফ চাপা দিতে বলেন এবং কিছু ওষুধ সেবন করতে দেন। এতে কিছুদিন আরাম পাই। কিন্তু ওষুধ বন্ধ করার পর থেকে আবার ব্যথা শুরু হয় এবং আমার হাঁটা-চলা করতে অসুবিধা হতে থাকে। আমি আবার ডাক্তার দেখালে তিনি বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখাতে বলেন। আমি এখন কী করব?

ইলা রানী দাস ডামুড্যা, শরীয়তপুর।

সমস্যা শুনে মনে হচ্ছে পায়ের গোড়ালি বা হাঁটু স্প্রেইন বা মচকে গেছে। হাড় ভেঙে গেছে বলে মনে হচ্ছে না। হাড় ভাঙলে অনেক ফুলে যেত এবং প্রচণ্ড ব্যথা হতো। তার পরও এক্সরে করে দেখা দরকার আর কোনো সমস্যা হয়েছে কি না। স্থানীয় ডাক্তার ঠিকই বলেছেন। এখন আপনার উচিত বিশেষজ্ঞ অর্থোপেডিক সার্জন দেখানো।

 

আমার বয়স ৩৫ বছর। উচ্চতা পাঁচ ফুট পাঁচ ইঞ্চি। ওজন ৬২ কেজি। আমি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে প্রায় আট বছর ধরে কাজ করছি। সেখানে আমাকে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত কম্পোজের কাজ করতে হয়। সন্ধ্যার পর আরেকটি প্রতিষ্ঠানে পার্ট টাইম কম্পোজের কাজও করি। ইদানীং আমার হাতের আঙুল থেকে ঘাড় পর্যন্ত ব্যথা হচ্ছে। হাঁটু থেকে শুরু করে পায়ের পাতায়ও মাঝেমধ্যে ব্যথা অনুভব করি। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার সময় সমস্যা বেশি মনে হয়। মাঝেমধ্যে ব্যথার ওষুধ সেবন করি। এতে আবার গ্যাস্ট্রিকের খুব সমস্যা হয়। কী করলে ব্যথা থেকে মুক্তি পাব?

হায়দার হোসেন সাহেব বাজার, রাজশাহী।

একটানা দীর্ঘ সময় কম্পিউটারের সামনে কাজ করছেন বলে সমস্যাগুলো হচ্ছে। কম্পোজ করার সময় হাতের মাংসপেশি ও টেন্ডনগুলোকে বাড়তি কাজ করতে হয়। এ জন্য কার্পাল টানেল সিন্ড্রোমের মতো কিছু অসুখ হতে পারে। অনেক সময় বসার চেয়ার ও বসার ভঙ্গি স্বাস্থ্যসম্মত হয় না। এ জন্যও ব্যথা হতে পারে। আপনি কাজের ফাঁকে ফাঁকে খানিকটা বিরতি নিন। একটু ঘুরে-ফিরে আবার বসুন। বসার আসন আরামদায়ক না হলে তা পরিবর্তন করুন। শুধু ব্যথার ওষুধ সেবন করাও ঠিক নয়।

 

আমার ছেলের বয়স ১২ বছর। ছয় মাস আগে পেয়ারাগাছ থেকে পড়ে যায়। গাছের নিচে ইট ছিল। ও পিঠের কাছে ব্যথা পেয়ে অজ্ঞান হয়ে যায়। মুখ দিয়ে ফেনার মতো ওঠে। সঙ্গে সঙ্গে ওকে থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই। ডাক্তার জরুরি চিকিৎসা দেন এবং হাসপাতালে সাত দিন ভর্তি রাখেন। দুই সপ্তাহ বিশ্রাম নিতে বলেন। দুই সপ্তাহ পর থেকে ও হাঁটাহাঁটি শুরু করে। তখন কোনো অসুবিধা বোধ করেনি; কিন্তু এক মাস ধরে কোমরে ব্যথার কথা বলছে। ও ঠিকমতো হাঁটতে পারছে না, দৌড়াতেও পারছে না। কোমরে তেল দিয়ে মালিশ করলে খানিকটা আরাম পায়। আমি এখন কী করব?

রেহানা আক্তার বাউফল, পটুয়াখালী।

আপনার বর্ণনা শুনে মনে হচ্ছে ছেলেটি গাছ থেকে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পেয়েছিল। যে কারণে ও অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিল এবং মুখ দিয়ে ফেনা উঠেছিল। যথাসময়ে ডাক্তার দেখানোয় মাথায় আঘাতজনিত আর সমস্যা দেখা যায়নি। কিন্তু এখনো ঠিকমতো হাঁটা-চলা করতে পারছে না বলে মনে হচ্ছে এবং একই সঙ্গে ছেলেটি মেরুদণ্ডেও আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছিল, যা এখনো ক্ষতিগ্রস্ত অবস্থায় আছে। এটা বোঝার জন্য এক্সরেসহ কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন আছে। আপনি দেরি না করে একজন বিশেষজ্ঞ অর্থোপেডিক চিকিৎসককে দেখান, অন্যথায় আপনার সন্তানের আরো বেশি ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি থেকে যাবে।

 

আমার বয়স ৪২ বছর, ওজন ৭৫ কেজি। উচ্চতা সাড়ে পাঁচ ফুট। দীর্ঘদিন ধরে কব্জির ব্যথায় ভুগছি। এমনিতেই কিছু কিছু ব্যথা হয়; কিন্তু কোনো কাজ করতে গেলে ব্যথা বাড়ে, বিশেষ করে কাপড়চোপড় কাচার পর কাপড় নিংড়ানোর সময় প্রচণ্ড ব্যথা বোধ করি। ব্যথার প্রকোপ শীতকালে বাড়ে। তখন মনে হয় জয়েন্ট ফুলে গেছে। তখন অবশ্য গোড়ালি, কোমর ইত্যাদি স্থানেও ব্যথা হয়। গরম সেঁক নিলে উপকার পাই। ব্যথার ওষুধ খেলে কিছুটা ভালো থাকি; কিন্তু দীর্ঘদিন ব্যথার ওষুধ খেলে অনেক ক্ষতি হয় বলে শুনেছি। তাই যতটা সম্ভব ব্যথার ওষুধ না সেবন করে থাকার চেষ্টা করি। এতে আমি অনেক কষ্ট পাচ্ছি। আমার কী করা উচিত?

মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ গড়াই, টাঙ্গাইল।

বর্ণনা শুনে যতটুকু বুঝতে পারছি তাতে মনে হচ্ছে আপনি আর্থ্রাইটিস, গাউট বা গিঁটে বাতের সমস্যায় ভুগছেন। তবে এ ধরনের রোগ সত্যিই হয়েছে কি না তা নির্ণয় করতে বেশ কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন আছে। যেহেতু গরম সেঁক নিলে উপকৃত হচ্ছেন, তাই ওটা বন্ধ করবেন না। শুধু ব্যথার ওষুধ সেবন করে গেলে কিছু সমস্যা হয়। তবে যাদের আর্থ্রাইটিস, গাউট ইত্যাদির সমস্যা আছে তাদের দীর্ঘদিন ব্যথার ওষুধ লাগতে পারে। এ ক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী দীর্ঘদিন সেবনযোগ্য ওষুধ নিতে হবে। কিছু ক্ষেত্রে খাবার-দাবার বাছাই করে খাওয়ারও প্রয়োজন হতে পারে। আপনি অর্থোপেডিক বিশেষজ্ঞ দেখান।


মন্তব্য