kalerkantho

26th march banner

ঐতিহাসিক স্থাপনাগুলো বাছাই করে সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে

ড. শরীফ উদ্দিন আহমেদ
ইতিহাসবিদ

১৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ঐতিহাসিক স্থাপনাগুলো বাছাই করে সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে

ইতিহাসের মানুষ হিসেবে এটা তো অবশ্যই খারাপ লাগে। কিন্তু এখনকার বাস্তবতাটাও মেনে নিতে হবে। মানুষ বাড়ছে, সেই সঙ্গে বাড়ছে চাহিদাও। সব ঐতিহাসিক স্থাপনাকে আমরা বোধ হয় ধরে রাখতে পারব না। উদাহরণ হিসেবে শাঁখারীবাজারের কথা বলা যায়—ওখানকার বাড়িগুলোর মালিকদের তো সেই অর্থ নেই যে সেগুলো সংরক্ষণ করতে পারবে। ফলে এগুলো কোনো না কোনো সময় ধ্বংসপ্রাপ্ত হবেই। এ জন্য ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য ডিজিটালভাবে ডকুমেন্টেশন করে রাখা উচিত। অন্যদিকে এ ব্যাপারে সরকারের একটা সিদ্ধান্তে আসা উচিত। কিছু ঐতিহাসিক স্থাপনা বাছাই করে সেগুলো সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। এখন প্রশ্ন আসতে পারে, এই বাছাইকৃত স্থাপনার তালিকায় কোনগুলো আসতে পারে? সেসব নির্দিষ্ট করার জন্য একদল বিশেষজ্ঞকে দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে। তাঁরাই বিভিন্ন গুরুত্ব ও বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী এসব ঐতিহাসিক স্থাপনা বাছাই করবেন। হতে পারে ধর্মীয়, ঐতিহাসিক কিংবা রাজনৈতিক গুরুত্বের ওপর নির্ভর করে বাছাই করা যেতে পারে। করতে চাইলে অনেকভাবেই কাজ করা যায়; কিন্তু আগে আমাদের সিদ্ধান্তে আসতে হবে।


মন্তব্য