kalerkantho


যুক্তরাষ্ট্রের আজ্ঞাবহ রাষ্ট্র নয় ফ্রান্স : ট্রাম্পকে ম্যাখোঁ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



যুক্তরাষ্ট্রের আজ্ঞাবহ রাষ্ট্র নয় ফ্রান্স : ট্রাম্পকে ম্যাখোঁ

টুইটারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একের পর এক সমালোচনার জবাবে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ বলেছেন, তাঁর দেশ যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র, আজ্ঞাবহ রাষ্ট্র নয়। গত বুধবার দেওয়া সাক্ষাৎকারে ম্যাখোঁ ট্রাম্পের মন্তব্যের জবাব দেন।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সমাপ্তির শতবর্ষ পূর্তিতে চলতি সপ্তাহেই ফ্রান্স সফরে গিয়েছিলেন ট্রাম্প। সেখান থেকে ফিরেই মঙ্গলবার টুইটারে ফ্রান্স ও ম্যাখোঁর বিরুদ্ধে একের পর এক তীর ছোড়েন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেসব টুইটে জার্মানির কাছে দুটি বিশ্বযুদ্ধে ফ্রান্সের ‘প্রায় হেরে যাওয়ার’ কথা মনে করিয়ে দেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াইন আমদানিতে শুল্ক আরোপ নিয়েও ক্ষোভ ঝাড়েন তিনি। বলেন, ম্যাখোঁর জনপ্রিয়তা কমে যাওয়ার কথাও।

ট্রাম্প এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর ওপর নির্ভরশীলতা কমানোর লক্ষ্যে আলাদা ইউরোপীয় সেনাবাহিনী বানাতে ফরাসি প্রেসিডেন্টের ইঙ্গিত নিয়েও সমালোচনা করেছিলেন। এর পর থেকেই দুই দেশের সম্পর্কে অবনতির বিষয়টি প্রকাশ্য হয়। মার্কিন প্রেসিডেন্টের একের পর এক টুইটে অপমানিত হয়েছেন কি না, সাক্ষাৎকারে এমন প্রশ্নের জবাবে ম্যাখোঁ যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় থেকে শুরু করে দুই দেশের দীর্ঘ সামরিক মিত্রতার কথা উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, ‘ইতিহাসের প্রতিটি ক্ষণে আমরা মিত্র ছিলাম। মিত্রদের মধ্যে শ্রদ্ধাবোধ থাকে। মনে হয় না ফরাসিরা আমার কাছ থেকে ওই টুইটগুলোর জবাব আশা করে, আশা করে ইতিহাসের ধারাবাহিকতা।’ মধ্যবর্তী নির্বাচনে পরাজয়ের ধাক্কা সামলে উঠতে ‘অভ্যন্তরীণ রাজনীতির খেলায়’ ট্রাম্প এ ধরনের মন্তব্য করেছেন বলেও ধারণা করেন ম্যাখোঁ।

ম্যাখোঁ ইউরোপীয় সেনাবাহিনী প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব ট্রাম্পকে ক্রুদ্ধ করার পর থেকে দুই দেশের মধ্যে ‘কোনো ধরনের ভুল বোঝাবুঝি’ চলছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে ফরাসি প্রেসিডেন্ট বলেন, মার্কিন মিত্র হওয়ার অর্থ এই নয় যে তার দেশ যুক্তরাষ্ট্রের আজ্ঞাবহ। ম্যাখোঁ বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র আমাদের ঐতিহাসিক মিত্র এবং এ ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে। তারা সেই মিত্র যাদের নিয়ে আমরা সব ধরনের ঝুঁকি নিয়েছি, চালিয়েছি জটিল সব অভিযান। যদিও মিত্রতার অর্থ এই নয় যে আমরা তাদের আজ্ঞাবহ রাষ্ট্র।’ ম্যাখোঁ ২০১৭ সালে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তাঁর সঙ্গে ট্রাম্পের সম্পর্ক বন্ধুত্বপূর্ণভাবে শুরু হলেও এই প্রকাশ্য বিরোধ সেই অবস্থার সম্পূর্ণ বিপরীত।

ম্যাখোঁর আমন্ত্রণে গত বছর বাস্তিল দিবসের কুচকাওয়াজ দেখতে গিয়েছিলেন ট্রাম্প। চলতি বছরের শুরুতে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডিকে ওয়াশিংটনেও আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন তিনি। দুই সাক্ষাতের পর গণমাধ্যমে ম্যাখোঁকে ‘অসাধারণ মানুষ’ ও ‘আমার বন্ধু’ বলেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। যদিও এ ‘উষ্ণ কথামালাকে’ ঘনিষ্ঠতায় রূপান্তর করতে পারেননি ম্যাখোঁ। সূত্র : রয়টার্স, এএফপি।

 

 



মন্তব্য