kalerkantho


চীনের প্রধানমন্ত্রী জানালেন

তিন বছরের মধ্যেই দক্ষিণ চীন সাগর বিধিমালা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



দক্ষিণ চীন সাগরের জলসীমা নিয়ে বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য আগামী তিন বছরের মধ্যে একটি বিধিমালা প্রণয়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন চীনের প্রধানমন্ত্রী লি খোয়াছিয়াং। তিনি বলেন, চীন ‘আধিপাত্য’ বা ‘সম্প্রসারণ’ নীতিতে বিশ্বাস করে না।

লির বক্তব্যের মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো ওই বিরোধপূর্ণ জলসীমা নিয়ে বিধি প্রণয়নের নির্দিষ্ট সময়সীমা প্রকাশ পেল। এ বিধিমালার জন্য চীন কম শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে আলাদা আলাদা বৈঠক করেছে। এর মাধ্যমে বিধি প্রণয়নে বিলম্ব করা হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে।

দক্ষিণ চীন সাগরের বিতর্কিত কিছু এলাকার পুরোটাই নিজেদের দাবি করে আসছে বেইজিং। কিন্তু ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, ব্রুনেই ও তাইওয়ানও কিছু এলাকা নিজেদের বলে দাবি করে আসছে। যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান এসব দেশের পক্ষে। বিরোধপূর্ণ এসব এলাকা হলো স্পার্টলি, প্যারাসেল ও স্কেয়ারবোরো দ্বীপপুঞ্জ। এর মধ্যে স্পার্টলিতে বেশ কয়েকটি কৃত্রিম দ্বীপ বানিয়েছে চীন। এ ছাড়া দখলকৃত দ্বীপে তারা সামরিক স্থাপনা নির্মাণ করেছে বলেও অভিযোগ আছে।

জলসীমা নিয়ে বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য কয়েক বছর ধরে একটি বিধি তৈরির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর জোট আসিয়ান। তবে এই প্রক্রিয়ার গতি খুবই ধীর। চলতি বছরের আসিয়ান সম্মেলন সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেখানে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে লি বলেন, ‘চীন আশা করে, আগামী তিন বছরের মধ্যে বিধিমালা প্রণয়নের কাজ শেষ হবে; যেটি দক্ষিণ চীন সাগরে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখবে।’

লি আরো বলেন, ‘আমরা সেখানে আধিপাত্য বা সম্প্রসারণ করতে চাই না। এ ধরনের কাজ আমরা কখনোই করব না। আমরা প্রতিবেশীদের সঙ্গে সুসংগত সম্পর্কে বিশ্বাস করি।’

এদিকে মার্কিন নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন বলেছেন, চীন ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর বিধিমালায় এমন ধারা রাখা সমীচীন হবে না, যাতে সমুদ্রে প্রবেশাধিকার সংরক্ষণ করা হয়।

এর আগে গত আগস্টে চীন ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো ঘোষণা দেয়, জলসীমা সম্পর্কিত একটি বিধিমালা প্রণয়নে তারা ঐকমত্যে পৌঁছেছে। সূত্র : এএফপি।



মন্তব্য