kalerkantho


জেফ সেশনসকে সরালেন ট্রাম্প

‘রুশ হস্তক্ষেপ’ তদন্তের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



‘রুশ হস্তক্ষেপ’ তদন্তের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা

মধ্যবর্তী নির্বাচন শেষ হওয়ার ২৪ ঘণ্টা না পেরোতেই পদত্যাগ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশসন। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘অনুরোধে’ যে তিনি পদত্যাগ করেছেন, সেটা পদত্যাগপত্রের শুরুতেই উল্লেখ করেছেন সদ্য সাবেক অ্যাটর্নি। গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপ ও তাতে ট্রাম্পসহযোগীদের আঁতাতের অভিযোগে যে তদন্ত চলছে, সেশসনের পদত্যাগের ফলে সে তদন্তের ভবিষ্যৎ হুমকির মুখে পড়ল বলে মন্তব্য করছে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো।

সেশনসের তারিখবিহীন পদত্যাগপত্র গত বুধবার দিনের শুরুতেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে পৌঁছে যায়। পদত্যাগপত্রের শুরুতে তিনি প্রেসিডেন্টের উদ্দেশে লিখেছেন, ‘আপনার অনুরোধে আমি আমার পদত্যাগপত্র দাখিল করছি।’ ট্রাম্প এ পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন।

সেশনসের পদত্যাগের পরিপ্রেক্ষিতে ভারপ্রাপ্ত অ্যাটর্নি জেনারেলের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তাঁর চিফ অব স্টাফ ম্যাথিউ হোয়াইটেকারকে। এ দায়িত্ব পাওয়ার মধ্য দিয়ে হোয়াইটেকার অনেক ক্ষমতাই অর্জন করেছেন, যেগুলোর মধ্যে অন্যতম আলোচিত হলো গত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের তদন্তের দেখভালের দায়িত্ব। তবে তাঁর সব ক্ষমতাই সর্বোচ্চ ২১০ দিনের জন্য প্রযোজ্য। আইন অনুযায়ী তিনি ২১০ দিন পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত অ্যাটর্নির দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। এর মধ্যে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে পূর্ণাঙ্গ অ্যাটর্নি জেনারেল নিয়োগের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে।

হোয়াইটেকারের দায়িত্ব পালনের এ অল্প সময়ের মধ্যেই তাঁর মাধ্যমে ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রুশ আঁতাতের অভিযোগের তদন্তকে বাধাগ্রস্ত করতে পারেন, এমন আশঙ্কায় সমালোচনামুখর হয়ে উঠেছেন ডেমোক্র্যাট নেতারা।

হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভে ডেমোক্র্যাট শিবিরের বর্তমান নেতা ন্যান্সি পেলোসি টুইট করেছেন, ‘স্পেশাল কাউন্সেলর মুয়েলারের (রুশ কেলেঙ্কারির) তদন্তের ধ্বংসসাধন এবং এর সমাপ্তি ঘটানোর লক্ষ্যে ডোনাল্ড ট্রাম্প অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনসকে বরখাস্ত করেছেন—ব্যাপারটাকে এভাবে ছাড়া অন্য কোনোভাবে দেখা অসম্ভব।’ টুইটে তিনি হোয়াইটেকারকে রুশ আঁতাতের তদন্ত দেখভাল করার পরিবর্তে সেশনসের পথ অনুসরণ করে তদন্তের কর্মকাণ্ড থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেওয়ার অনুরোধ জানান।

২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পকে জেতাতে তাঁর সহযোগীরা রুশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগসাজশে জড়িয়েছিলেন, এমন অভিযোগের তদন্ত করছেন রবার্ট মুয়েলার। সূত্র : বিবিসি।



মন্তব্য