kalerkantho


যুক্তরাষ্ট্রে ফের বন্দুক হামলা

ক্যালিফোর্নিয়ায় মিউজিক বারে গুলি, নিহত ১২

এ ঘটনায় সন্ত্রাসবাদের যোগ আছে কি নেই তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ক্যালিফোর্নিয়ায় মিউজিক বারে গুলি, নিহত ১২

হামলায় আহতদের দুজন। ছবি : এএফপি

যুক্তরাষ্ট্রে ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের লস অ্যাঞ্জেলেসের উপকণ্ঠে বুধবার রাতে মিউজিক বারে বন্দুকধারীর হামলায় এক পুলিশ কর্মকর্তাসহ ১২ জন নিহত ও কমপক্ষে আরো ১২ জন আহত হয়েছে। বন্দুকধারী নিজেও নিহত হয়েছে। পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের পিটসবার্গে এক ইহুদি উপাসনালয়ে বন্দুকধারীর হামলায় ১১ জন নিহত হওয়ার ১০ দিনের মাথায় এ হামলা হলো।

ঘটনা সম্পর্কে এরই মধ্যে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বিস্তারিত জানানো হয়েছে। তিনি টুইট করে সেটা জানিয়েছেন।

পুলিশ কর্মকর্তা ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বুধবার রাতে বর্ডারলাইন বার অ্যান্ড গ্রিল যখন কলেজ শিক্ষার্থীতে ঠাসা, তখন এ হামলা হয়। হামলাকারী গুলি চালাতে শুরু করে স্থানীয় সময় রাত প্রায় ১১টা ২০ মিনিটে। ভেঞ্চুরা কাউন্টি শেরিফ জিওফ ডিন প্রথমে ১১ জন নিহতের খবর জানালেও পরে পুলিশ কর্মকর্তা রন হেলাসের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ায় সংখ্যাটা ১২ জনে দাঁড়ায়। এর বাইরে হামলাকারী নিজেও নিহত হয়েছে। তবে পুলিশের গুলিতে নাকি নিজের গুলিতে তার মৃত্যু হয়েছে, তা তাত্ক্ষণিক জানাতে পারেননি শেরিফ ডিন।

ঘটনার পর প্রথম সংবাদ সম্মেলনে শেরিফ বলেন, ‘এ ঘটনায় সন্ত্রাসবাদের যোগ আছে কি নেই, তা আমরা জানি না। আপনারা জানেন, তদন্ত চলছে এবং এ ভয়াবহ অঘটনের হোতার পরিচয় ও হামলার উদ্দেশ্য সম্পর্কে যত দ্রুত আমরা জানতে পারব, তত দ্রুত আমরা সন্ত্রাসবাদের সংযোগের বিষয়টা নিশ্চিত হতে পারব।’

ঘটনাস্থলে উপস্থিত ২০ বছরের কলেজ শিক্ষার্থী ম্যাট ওয়েনার্সট্রন জানান, হামলাকারী শর্ট ব্যারেলের পিস্তল দিয়ে গুলি চালিয়েছে। পিস্তলটায় আনুমানিক ১০-১৫ রাউন্ড ম্যাগাজিন ছিল। প্রথমবারের গুলি শেষ হওয়ার পর হামলাকারী যখন পিস্তল রিলোড করছিল, তখন ওয়েনার্সট্রন আর তাঁর সঙ্গীরা পালাতে শুরু করেন। তিনি বলেন, ‘আমি আর পেছনে ফিরে তাকাইনি।’

ঘটনার সময় প্রায় ১৫ বন্ধুকে নিয়ে বারে উপস্থিত জেসমিন আলেক্সান্ডার বলেন, ‘সাধারণ একটা বুধবার ছিল। আমরা মাত্রই বারে ঢুকে মজা করছিলাম, নাচছিলাম। হঠাৎই আমরা গুলির আওয়াজ শুনলাম। প্রথমে ব্যাপারটাকে পাত্তা দিইনি, কারণ গুলির আওয়াজ পটকার মতো শোনাচ্ছিল।’ কিন্তু লোকজনকে মেঝেতে লুটিয়ে পড়তে দেখে সবার সংবিৎ ফেরে এবং তারা পালাতে শুরু করে।

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রান্তে একের পর এক উন্মত্ত বন্দুকধারীর হামলার ঘটনা ঘটছে। গত বছর লাস ভেগাসে এক কনসার্টে এ ধরনের হামলায় ৫৮ জনের প্রাণহানি সাম্প্রতিকালের সবচেয়ে ভয়াবহ ঘটনা বলে জানায় সংবাদমাধ্যমগুলো। সূত্র : এএফপি।



মন্তব্য