kalerkantho


পাকিস্তানে পার্লামেন্ট অধিবেশন শুরু, ৩৩১ সদস্যের শপথ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



পাকিস্তানে পার্লামেন্ট অধিবেশন শুরু, ৩৩১ সদস্যের শপথ

পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে জাতীয় পরিষদের উদ্বোধনী অধিবেশনে গতকাল শপথ নেন পিটিআইপ্রধান ইমরান খান। ছবি : জিও নিউজ

পাকিস্তানে নবনির্বাচিত পার্লামেন্টের প্রথম অধিবেশন বসে গতকাল সোমবার। প্রথম দিনই বিদায়ী স্পিকার ৩৩১ সদস্যকে শপথবাক্য পাঠ করান। নতুন সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রথম ধাপ ছিল এটি।

বিদায়ী স্পিকার আয়াজ সাদিক গতকাল ১৫তম পার্লামেন্টের প্রথম অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন। নতুন সদস্যরা শপথগ্রহণের পর হাজিরা খাতায় সই করেন। এর আগে প্রেসিডেন্ট মামনুন হুসাইন পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির অধিবেশনের ডাক দেন। সেই হিসেবে গতকাল সকাল ১০টায় অধিবেশন বসে। ১৯ দিন আগে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে আবির্ভূত হয়।

গতকাল পার্লামেন্টে ভাবী প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানসহ প্রধান প্রধান দলগুলোর নেতারা উপস্থিত থেকে শপথ নেন। গতকাল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) সভাপতি শাহবাজ শরিফ, পাকিস্তান পিপলস পার্টির সভাপতি বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারিও শপথ নেন। আগামী ১৫ আগস্ট নতুন স্পিকার নির্বাচন হবে বলে বিদায়ী স্পিকার জানান। এ পদে পিটিআইয়ের মনোনীত প্রার্থী হচ্ছেন আসাদ কায়সার। বিরোধীদলীয় জোট যৌথভাবে পিপিপির খুরশিদ শাহকে মনোনয়ন দিয়েছে।

এর আগে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন শুরু হয়।

গতকালের অধিবেশনে ইমরানের তৎপরতা ছিল আলাদা করে চোখে পড়ার মতো। তিনি পার্লামেন্টের প্রথম সারিতে বসেন। তাঁর আসনটি ছিল পার্লামেন্টের নেতার চেয়ারের কাছাকাছি। ধারণা করা হচ্ছে, আগামী কয়েক দিনের মধ্যে শপথগ্রহণের পর পার্লামেন্ট নেতা অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীর আসনটিতে তিনিই বসবেন।

২৫ জুলাইয়ের নির্বাচনে পিটিআই আসন পায় ১১৬টি। পরবর্তীতে ৯ স্বতন্ত্র সদস্য দলে যোগ দিলে তাদের আসন দাঁড়ায় ১২৫টি। এরপর গত শনিবার নির্বাচন কমিশন সংরক্ষিত আসন থেকে পিটিআইকে ৩৩টি আসন বরাদ্দ দেয়। এখন দলটির মোট আসন ১৫৮টি। ফলে পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন থেকে পিটিআই মাত্র ১৪টি আসন দূরে।

দলীয় সূত্র জানিয়েছে, এরই মধ্যে মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি পদে নিয়োগ নিশ্চিত হয়েছে। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন শাহ মাহমুদ কুরেশি, তিনি দায়িত্ব পাবেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন পারভেজ খাট্টাক। আসাদ ওমর দায়িত্ব পাবেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের। এ ছাড়া ইমরান অর্থ উপদেষ্টা হিসেবে ব্যবসায়ী আবদুর রাজ্জাক দাউদকে নিয়োগ দেবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। দাউদ সাবেক সামরিক শাসক পারভেজ মোশাররফের আমলে মন্ত্রিসভায় ছিলেন।

ইমরান খান নিজে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ১৮ আগস্ট প্রেসিডেন্ট ভবনে শপথ নেবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাঁর বিরুদ্ধে বিরোধীদলীয় জোট থেকে পিএমএল-এনের শাহবাজ শরিফের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। ইমরানের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পথে বিরোধী দল প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে না পারলেও তাঁর দলের পক্ষে সরকার পরিচালনার কাজটি খুব সহজ হবে না। কারণ পিএমএল-এন (৮২ আসন), পিপিপি (৫৩ আসন) এবং মুত্তাহিদ মজলিশ-ই-আমল (১৫ আসন) মিলে বিরোধীদলীয় জোট যথেষ্ট শক্তিশালী। সূত্র : পিটিআই।



মন্তব্য