kalerkantho


আজ থেকে নির্ভয়ে চালকের আসনে সৌদি নারীরা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০



আজ থেকে নির্ভয়ে চালকের আসনে সৌদি নারীরা

সৌদি নারীদের গত বৃহস্পতিবার ড্রাইভিং লাইসেন্স বিতরণ করা হয়। ছবি : এএফপি

সৌদি আরবের রাস্তায় গাড়ি চালাতে আর কোনো বাধার মুখে পড়তে হবে না নারী চালকদের। কারণ আজ রবিবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে তারা গাড়ি চালানোর নিষেধাজ্ঞামুক্ত হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, এ উপলক্ষে হাজার হাজার নারী গাড়ি নিয়ে সৌদি আরবের রাস্তায় বের হবে।

যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নানামুখী সংস্কার কর্মসূচির মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রচারের আলোয় এসেছে নারীদের গাড়ি চালানোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ইস্যুটি। গত বছর সেপ্টেম্বরে তিনি ঘোষণা দেন, এ বছর চলতি মাসে এ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হবে। তাঁর ঘোষণার বাস্তবায়নের স্বার্থে এ মাসের গোড়া থেকে নারীদের গাড়ি চালানোর লাইসেন্স দেওয়া শুরু হয়।

লন্ডনভিত্তিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ফ্যাক্টস গ্লোবাল এনার্জির তথ্য মতে, সৌদি আরবে প্রায় ৬০ লাখ নারী গাড়ি চালানোর লাইসেন্স পেতে আবেদন করবেন। এত বিপুলসংখ্যক নারীকে একসঙ্গে লাইসেন্স দেওয়া সম্ভব হবে না বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকদের অনেকে। আরেক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান প্রাইসওয়াটারহাউজকুপারস বলছে, ২০২০ সাল নাগাদ সম্ভবত প্রায় ৩০ লাখ নারী লাইসেন্স পেয়ে গাড়ি চালাতে শুরু করবেন। নারী চালকদের সম্ভাব্য সংখ্যা মাথায় নিয়ে ইতিমধ্যে রাজধানী রিয়াদ, জেদ্দাসহ বিভিন্ন শহরে গজিয়ে উঠেছে গাড়ি চালানোর প্রশিক্ষণকেন্দ্র।

শুধু প্রাইভেট কার নয়, সৌদি নারীদের মোটরসাইকেল, ভ্যান ও ট্রাক চালানোর অনুমতিও দেওয়া হবে। এ ছাড়া সৌদি ট্রাফিক বিভাগ জানিয়েছে, এত দিন যেসব সৌদি নারী অন্যান্য উপসাগরীয় দেশের ড্রাইভিং লাইসেন্স বহন করছিল, তাদের লাইসেন্সগুলো সৌদি সরকারের লাইসেন্সে রূপান্তর করতে হবে। তবে আন্তর্জাতিক ড্রাইভিং লাইসেন্সধারী সৌদি নারীরা আপাতত এক বছর ওই লাইসেন্স নিয়েই দেশে গাড়ি চালাতে পারবে এবং এক বছর পর তাদের সৌদি লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে হবে। আর লাইসেন্স প্রদানের বয়সসীমা নারী-পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রে একই। পুরুষদের মতো নারীরাও ব্যক্তিগত গাড়ি চালানোর জন্য ১৮ বছর বয়সে এবং গণপরিবহন চালানোর জন্য ২০ বছর বয়সে লাইসেন্সের আবেদন করতে পারবে।

নারীদের গাড়ি চালানো সংক্রান্ত সব আইনি দিক ঠিকঠাক থাকার পরও সৌদি নারীদের আশঙ্কা, কট্টর পুরুষতান্ত্রিক এ সমাজে তারা হয়তো হয়রানির শিকার হবে। সরকার অবশ্য বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে যৌন হয়রানির শাস্তি হিসেবে পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড ও সর্বোচ্চ তিন লাখ রিয়াল জরিমানার বিধান চালু করেছে। সূত্র : এএফপি।

 



মন্তব্য