kalerkantho


জি-সেভেন সম্মেলন

নারীশিক্ষায় ২৯০ কোটি ডলারের প্রতিশ্রুতি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১১ জুন, ২০১৮ ০০:০০



বিশ্বের দরিদ্রতম নারী ও কন্যাশিশুদের শিক্ষা নিশ্চিত করতে জি-৭ দেশগুলোর অংশীদারদের সাহায্য নিয়ে ২৯০ কোটি ডলার জোগানের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে কানাডা। বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন দেশে শিক্ষা ও জ্ঞান অর্জনের ক্ষেত্রে সমান সুযোগ নিশ্চিতে এই অর্থ তহবিল গঠনে সাহায্য করবে বলে এক বিবৃতিতে বলেছে কানাডার সরকার।

গত শনিবার কানাডার কুইবেকে জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনে এই পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করা হয়। এ বরাদ্দে অর্থ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে জার্মানি, জাপান, যুক্তরাজ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ), বিশ্বব্যাংকসহ জি-৭-এর অন্য অংশীদাররা।

বিশ্ব অর্থনীতির ৬০ শতাংশেরও বেশি অংশের নিয়ন্ত্রক যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি ও জাপানের সরকারপ্রধানদের নিয়ে কানাডায় শুক্র ও শনিবার শিল্পোন্নত সাতটি দেশের বাষির্ক জি-৭ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।  জি-৭-এর প্রতিশ্রুত এই বরাদ্দ ‘সংকট ও সংঘর্ষের পরিস্থিতিতে নারী ও  মেয়েদের শিক্ষায় একক বৃহত্তম বিনিয়োগ’ হিসেবে হাজির হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে কানাডার সরকার। 

প্রস্তাবিত এই বিনিয়োগ ৮০ লাখেরও বেশি কন্যাশিশু ও বালিকার শিক্ষায় সহায়তা করবে বলেও জানিয়েছে তারা। ২০ বছর বয়সী নোবেল শান্তি পুরস্কারজয়ী মালালা ইউসুফজাই শিক্ষা খাতে নতুন এ বরাদ্দের প্রতিশ্রুতিকে স্বাগত জানিয়েছেন। জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফের তথ্য মতে, বিশ্বের সংঘাতমুখর ৩৫টি অঞ্চলের প্রায় সাত কোটি ৫০ লাখ শিশু এখনো স্কুলের বাইরে; তাদের বেশির ভাগই মেয়ে। সংঘাতময় পরিস্থিতিতে ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের স্কুলে না যাওয়ার হার আড়াই গুণ বেশি।

শনিবার কানাডার সরকার যে নতুন বরাদ্দের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে তাতে যুক্তরাজ্য ২৫ কোটি ডলার বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। কানাডা বলেছে, তারা তিন বছরে দেবে ৩১ কোটি ডলার। সবচেয়ে বেশি অর্থ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বিশ্বব্যাংক, তারা পাঁচ বছরে ২০০ ডলার দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। সূত্র : বিবিসি।



মন্তব্য