kalerkantho


বাণিজ্য যুদ্ধে না জড়াতে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের ঐকমত্য

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ মে, ২০১৮ ০০:০০



বাণিজ্য যুদ্ধে না জড়াতে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের ঐকমত্য

একে-অপরের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধে না জড়ানোর ব্যাপারে একমত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন। গত কয়েক মাস দুই পক্ষ একে-অন্যের পণ্যে অতিরিক্ত আমদানি শুল্ক বসানোর হুমকি দেওয়ার পর এ ঘোষণা এলো। গতকাল রবিবার চীনের উপ-প্রধানমন্ত্রী লিউ হের বরাত দিয়ে দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যম সিনহুয়া ঐকমত্যের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

আমদানি-রপ্তানি নিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনার সূত্রপাত ৮ মার্চ। সেদিন এক আদেশে সই করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাতে চীনসহ কয়েকটি দেশ থেকে আমদানি করা ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়ামের ওপর অতিরিক্ত শুল্ক বসানো হয়। এরপর চীনের বিরুদ্ধে মেধাস্বত্ব চুরির অভিযোগ তুলে ২৫ মার্চ আরেকটি আদেশে সই করেন তিনি। যেটি আগামী সপ্তাহের শুরুতে কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। আর এটি কার্যকর হলে অন্তত ছয় হাজার কোটি ডলারের চীনা পণ্যে অতিরিক্ত আমদানি শুল্ক বসত। যুক্তরাষ্ট্রের এসব পদক্ষেপের জবাব হিসেবে চীনও কয়েক শ কোটি ডলারের মার্কিন পণ্যে অতিরিক্ত শুল্ক আরোপের ঘোষণা দেয়। বিশ্লেষকরা সতর্ক করে দেন, এভাবে চলতে থাকলে যেকোনো সময় দুই পক্ষের মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ বেধে যেতে পারে।

এ অবস্থায় উত্তেজনা প্রশমনে সম্প্রতি বৈঠকে বসে দুই পক্ষের প্রতিনিধিদল। পেইচিং ও ওয়াশিংটনে কয়েক দফায় এ বৈঠক হয়। তাতে উভয় পক্ষ বাণিজ্য যুদ্ধে না জড়ানো এবং একে-অন্যের ওপর শুল্ক আরোপ না করার ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছান।

চীনের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে ছিলেন উপ-প্রধানমন্ত্রী লিউ হে। সিনহুয়াকে তিনি বলেন, ‘দুই পক্ষ একটা সমঝোতায় পৌঁছেছে। এ সমঝোতা অনুযায়ী, দুই দেশ একে-অন্যের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধে জড়াবে না এবং অতিরিক্ত শুল্ক আরোপ থেকে বিরত থাকবে।’

এই ‘ঐকমত্যকে’ অপরিহার্য উল্লেখ করে লিউ হে বলেন, ‘একই সঙ্গে এটাও বুঝতে হবে যে, দুই পক্ষের মধ্যকার ব্যাবসায়িক বিরোধ রাতারাতি মীমাংসা করা সম্ভব নয়। এ জন্য সময় লাগবে।’

এর আগে ওয়াশিংটনে দুই দেশের যৌথ এক বিবৃতিতে বলা হয়, চীন আগের চেয়ে আরো বেশি মার্কিন পণ্য আমদানি করার ব্যাপারে রাজি হয়েছে। তবে বিবৃতিতে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি। সূত্র : এএফপি।

 

 



মন্তব্য