kalerkantho


শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থার মধ্যেও বাড়িঘরে আগুন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থার মধ্যেও সাম্প্রদায়িক সংঘাতকবলিত ক্যান্ডি জেলায় দাঙ্গা চলছে। গতকাল বুধবারও মুসলমানদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের আগুন দেয় সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলিরা। গতকালের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

গত সপ্তাহে শ্রীলঙ্কার মধ্যাঞ্চলীয় ক্যান্ডি জেলায় উচ্ছৃঙ্খল জনতার হামলায় এক সিংহলি নিহত হওয়ার সূত্র ধরে পুরনো সাম্প্রদায়িক দ্বন্দ্ব চরমভাবে উসকে ওঠে। সিংহলিদের অভিযোগ, মুসলিমদের হামলায় ওই ব্যক্তি নিহত হয়েছে। এরপর তারা মুসলিমদের বাড়িঘর-ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান জ্বালাতে শুরু করলে ক্যান্ডিতে গত সোমবার সান্ধ্য আইন জারি করা হয়। তাতে কাজ না হওয়ায় পরদিন দেশজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করে সরকার। মুসলিমদের ওপর সহিংসতার জন্য এদিন তাদের কাছে ক্ষমাও চায় পার্লামেন্ট। উসকানি ছড়ানো ঠেকাতে বন্ধ করা হয় ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং ইন্টারনেট যোগাযোগ। এ ছাড়া ক্যান্ডিতে আজ বৃহস্পতিবারও সান্ধ্য আইন জারি রাখা হচ্ছে, বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এসবের মধ্যেই গতকাল বুধবার মুসলিমদের সম্পত্তিতে অগ্নিসংযোগ চলে।

দাঙ্গাকারীদের ঠেকাতে গতকাল ক্যান্ডির পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে বাধ্য হয়। জেলার মেনিখিনা এলাকায় গত মঙ্গলবার রাতভর দাঙ্গাকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে কমপক্ষে তিনজন পুলিশ সদস্য আহত হন বলে জানান পুলিশের এক মুখপাত্র।

সরকারের মুখপাত্র রাজিথা সেনারত্নে দাঙ্গা সৃষ্টিকারীদের শাস্তি নিশ্চিত করার অঙ্গীকার করেন। ‘এটা সংঘবদ্ধ সহিংসতা’ এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এ দাঙ্গার পেছনে চার ব্যক্তিকে আমরা চিহ্নিত করেছি এবং শিগগির তাদের গ্রেপ্তার করা হবে।’ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে যারা মুসলিমদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়ানোর চেষ্টা করছে, তাদেরও গ্রেপ্তারে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য