kalerkantho


অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দলের সঙ্গে ‘দ্বিমত’

বহু রিপাবলিকান এনআরএকে ভয় পান : ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



বহু রিপাবলিকান এনআরএকে ভয় পান : ট্রাম্প

অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন সংস্কারের ব্যাপারে নিজ দলের (রিপাবলিকান) ‘বিপক্ষে’ অবস্থান নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এমনকি অনেক রিপাবলিকান অস্ত্র ব্যবসায়ীদের সংগঠন ‘ন্যাশনাল রাইফেল অ্যাসোসিয়েশন’কে (এনআরএ) ভয় পান বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি। একই সঙ্গে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন আরো কঠোর করতে কংগ্রেসে নতুন প্রস্তাব তুলতে তিনি আইন প্রণেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ফ্লোরিডার একটি স্কুলে বন্দুক হামলায় ১৭ জন নিহত হয়। ওই ঘটনার পর থেকে প্রচলিত অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন আরো কঠোর করা নিয়ে দাবি ওঠে। এই দাবিতে সমর্থন দেন ট্রাম্পও। যুক্তিরাষ্ট্রের সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী অনুযায়ী, ১৮ বছর পূর্ণ হলে নিরাপত্তার জন্য যেকোনো ব্যক্তি অস্ত্র কিনতে ও বহন করতে পারবে। যুক্তরাষ্ট্রে বহু বছর ধরে এই আইনের রক্ষাকবচ হিসেবে কাজ করছে এনআরএ। মূল দুই দলের বহু রাজনীতিকের ওপর এদের প্রভাব রয়েছে। নির্বাচনের আগে ট্রাম্পের প্রচারেও এরা তহবিলের জোগান দেয়।

এ অবস্থায় গত বুধবার ‘স্কুল নিরাপত্তা’ বিষয়ে দুই দলের আইন প্রণেতাদের সঙ্গে হোয়াইট হাউসে বৈঠক করেন ট্রাম্প। প্রায় এক ঘণ্টার ওই বৈঠকটি সরাসরি সম্প্রচারিত হয়। বৈঠকে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সম্ভাব্য একটি বিল নিয়ে কথা হয়। ‘টুমি-ম্যানসিন’ নামের বিলটিতে অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে ক্রেতা সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজখবর নেওয়ার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ট্রাম্প বৈঠকে প্রস্তাব তোলেন, অস্ত্র ক্রয়ের জন্য ন্যূনতম বয়স ১৮ থেকে বাড়িয়ে ২১ বছর করা হোক।

বৈঠকে ট্রাম্প এনআরএর বিষয়েও কথা বলেন। আইন প্রণেতাদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘আপনাদের ওপর তাদের (এনআরএ) প্রভাব থাকতে পারে; কিন্তু আমার ওপর ততটা নেই।’ একপর্যায়ে এক রিপাবলিকান সিনেটরের উদ্দেশে ট্রাম্প বলেন, ‘আপনি তো এনআরকে ভয় পান।’

আইন প্রণেতাদের উদ্দেশে ট্রাম্প আরো বলেন, ‘আমি চাই, আপনার এ বিষয়ে কঠোর একটি বিল নিয়ে আমার কাছে আসুন।’ পুলিশকে সন্দেহভাজন যে কারো অস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার ক্ষমতা দেওয়ার পক্ষে সুপারিশ করে ট্রাম্প বলেন, ‘প্রথম পদক্ষেপ হবে অস্ত্র কেড়ে নেওয়া; এরপর দ্বিতীয় পদক্ষেপ।’ তিনি বলেন, ‘আমরা বসে থাকতে পারি না।’

উল্লেখ্য, ‘বাম্প-স্টোক’ ডিভাইস বাতিল করতে ট্রাম্প ইতিমধ্যে এই বিলে সই করেছেন। ‘বাম্প-স্টোক’ এমন এক ডিভাইস, যেটি বন্দুকে লাগালে মিনিটে অন্তত ১০০টি গুলি ছোড়া সম্ভব।

সিএনএনের খবরে বলা হয়, অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারে হঠাৎ ট্রাম্পের এই মনোভাব পরিবর্তনের কারণে বৈঠকে উপস্থিত অনেকেই বিব্রত হন। কারণ অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ নিয়ে এর আগে ট্রাম্প একেবার একেক মনোভাব দেখিয়েছেন। ১৯৯০ এবং ২০০০ সালে ট্রাম্প স্বয়ংক্রিয় কিছু অস্ত্র বাতিলের পক্ষে সমর্থন জানিয়েছিলেন। আবার ২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার পর তিনি আবার এনআরএ দ্বারা প্রভাবিত হন।

২১-এর পক্ষে ওয়ালমার্ট : যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বিশ্বের সবচেয়ে বৃহৎ খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ওয়ালমার্ট জানিয়েছে, তারা অস্ত্র কেনার বয়সসীমা ১৮ থেকে ২১ বছর করার পক্ষে। এক বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানটি বলে, সাম্প্রতিক ঘটনাবলির আলোকে আমরা অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে আমাদের নীতিমালায় পরিবর্তন আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সূত্র : বিবিসি, ইনডিপেনডেন্ট, এএফপি।


মন্তব্য