kalerkantho


নেতানিয়াহুকে বুকে জড়িয়ে অভ্যর্থনা

মোদির সমালোচনায় কংগ্রেস

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



মোদির সমালোচনায় কংগ্রেস

ছয় দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এখন সস্ত্রীক ভারতে। গত রবিবার ভারতে পা দিলে তাঁকে স্বাগত জানাতে প্রটোকল ভেঙে বিমানবন্দরে হাজির হন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বিমান থেকে নামতেই মোদি জড়িয়ে ধরেন ‘বন্ধু’কে। আর সেই আলিঙ্গন ঘিরেই ভারতে শুরু হয়েছে কটাক্ষ ও রাজনীতির চাপানউতোর। মোদির এই ‘চোখে লাগা জড়িয়ে ধরা’ নিয়ে গতকাল একটি সংবাদ প্রচার করেছে পশ্চিমবঙ্গের দৈনিক আনন্দবাজার।

পত্রিকাটি জানায়, নেতানিয়াহুকে মোদির জড়িয়ে ধরার ছবি সংবাদমাধ্যমে সম্প্রচারের পরেই বিরোধী দল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়। বিভিন্ন দেশে সফরের সময়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প, শিনজো আবেসহ বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রনেতাকে এত দিন কিভাবে জড়িয়ে ধরেছেন মোদি, সেসব ছবি দেওয়া হয় তাতে। মোদির আলিঙ্গনের পাশাপাশি হলিউডি সিনেমায় নায়ক-নায়িকাদের আলিঙ্গনের ছবিকেও রাখা হয় সেখানে। কংগ্রেসের টুইটারে লেখা হয়, ‘আমরা মোদির আরো আলিঙ্গন দেখার অপেক্ষায়।’

আনন্দবাজার জানাচ্ছে, পাল্টা প্রতিক্রিয়া দিয়েছে বিজেপিও। দলের মুখপাত্র সম্বিত পাত্র বলেন, ‘প্রধান বিরোধী দলের থেকে এমন ব্যবহার আমরা আশা করিনি। ভাবতেও পারিনি অন্য দেশের প্রধানমন্ত্রী ভারতে রয়েছেন যখন, সেই সময়ে কংগ্রেস এই ধরনের টুইট করতে পারে।’ পরে বিজেপি নেতা ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকরও কংগ্রেসকে নিশানা করে বলেন, ‘আসলে ওদের বলার কিছু নেই। তাই এই ধরনের কাজ করেছে কংগ্রেস।’

মোদিকে ঘিরে এই ধরনের কটাক্ষ নতুন নয়। গুজরাতের ভোটের আগে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে চা বিক্রেতা নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে ছবি দেওয়া হয়েছিল কংগ্রেসের যুবসংগঠনের মুখপত্রে। বিতর্কও হয়েছিল। পরে তা তুলে নেওয়া হয়।

মোদির এ আলিঙ্গন নিয়ে অবশ্য বিদেশি নেতারাও মাঝেমধ্যেই বিস্মিত হন। প্রথমবার যুক্তরাষ্ট্র সফরে গিয়ে ট্রাম্পকে জড়িয়ে ধরলে তিনি হতচকিত হয়ে পড়েছিলেন। পরে অবশ্য বিষয়টি ব্যাখ্যা করেন মোদি নিজেই। তাঁর ভাষ্য ছিল, ‘প্রাচ্যের অভ্যর্থনারীতি এমনই।’ 

সূত্র : আনন্দবাজার।



মন্তব্য