kalerkantho


আমি সবচেয়ে কম বর্ণবাদী : ট্রাম্প

‘শিটহোল’ মন্তব্যের ব্যাখ্যা দাবি দক্ষিণ আফ্রিকার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



আমি সবচেয়ে কম বর্ণবাদী : ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আফ্রিকার দেশগুলোকে ‘অত্যন্ত নোংরা জায়গা’ (শিটহোল কান্ট্রিস) অভিহিত করায় গতকাল সোমবার এর আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ জানিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। সেই সঙ্গে প্রিটোরিয়ায় কর্মরত মার্কিন রাষ্ট্রদূতের কাছে ট্রাম্পের এমন অশ্লীল মন্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়েছে। এদিকে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বর্ণবাদী মন্তব্য করার যে অভিযোগ উঠেছে, গত রবিবার তিনি তা অস্বীকার করেছেন।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প গত বৃহস্পতিবার সিনেটরদের সঙ্গে অভিবাসন ইস্যু নিয়ে বৈঠককালে আফ্রিকার দেশগুলোকে ‘শিটহোল কান্ট্রিস’ অভিহিত করেন, যা সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তুমুল বিতর্ক আর নিন্দা শুরু হয়। আফ্রিকান ইউনিয়ন গত শুক্রবার ট্রাম্পের এ মন্তব্যকে ‘বর্ণবাদী’ অ্যাখ্যা দিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে। গতকাল দক্ষিণ আফ্রিকা প্রিটোরিয়ায় কর্মরত মার্কিন রাষ্ট্রদূতের কাছে এ মন্তব্যের ব্যাখ্যা দাবি করে।

এদিকে আফ্রিকান ইউনিয়ন (এইউ) প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বর্ণবাদী আচরণের যে অভিযোগ তুলেছে, সে ব্যাপারে গত রবিবার সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি বর্ণবাদী নই। আপনারা এযাবৎ যত লোকের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন, তাদের মধ্যে আমি সবচেয়ে কম বর্ণবাদী।’ ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে ওয়েস্ট পাম বিচের ট্রাম্প ইন্টারন্যাশনাল গলফ ক্লাবে রিপাবলিকান নেতা কেভিন ম্যাককার্থির সঙ্গে নৈশভোজের সময় ট্রাম্প নিজের মানসিকতা সম্পর্কে এ দাবি করেন।

যে অভিবাসীদের নিয়ে অশ্লীল মন্তব্যের জেরে চার দিন ধরে বিতর্ক চলছে, তাদের কল্যাণে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার আমলে করা ‘ডেফার্ড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভালস’ (ডিএসিএ) শীর্ষক কর্মসূচি ব্যাপারে ট্রাম্প টুইট করেন, ‘ডিএসিএ সম্ভবত মৃত, কারণ ডেমোক্র্যাটরা সত্যিকার অর্থে এটা চান না। ডিএসিএভুক্ত লোকজনের জানা উচিত, ডেমোক্র্যাটরা হচ্ছেন সেই সব লোক, যাঁরা কোনো চুক্তি করতে চান না।’ তাঁর দাবি, হোয়াইট হাউস ‘ডিএসিএ নিয়ে চুক্তি করতে প্রস্তুত, আগ্রহী এবং সক্ষম।’

শিশুকালে অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশকারীদের স্বাভাবিক জীবনযাপন নিশ্চিত করতে সাবেক ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট ওবামা ডিএসিএ কর্মসূচি প্রণয়ন করেন। ওই সব অভিবাসীর এক কথায় ‘ড্রিমারস’ অভিহিত করা হয়। ট্রাম্প ক্ষমতায় বসেই এ কর্মসূচি বাতিল করেন। নতুন করে কোনো কর্মসূচি প্রণয়ন করা না হলে কয়েক লাখ লোককে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়তে হতে পারে। গত বৃহস্পতিবার ‘শিটহোল’ দেশগুলোর অভিবাসীদের কেন যুক্তরাষ্ট্রের রাখা হবে, ট্রাম্পের এমন মন্তব্যের জেরে ড্রিমারস ইস্যুর সমাধান আরো জটিল হয়ে উঠেছে।

প্রেসিডেন্টের অশ্লীল মন্তব্যে খেপেছেন খোদ রিপাবলিকানদেরই অনেকে। উটাহ অঙ্গরাজ্য থেকে নির্বাচিত হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভের হাইতিয়ান-আমেরিকান সদস্য মিয়া লাভ মনে করেন, আফ্রিকার দেশগুলোকে ‘শিটহোল’ মন্তব্য করে ট্রাম্প অরক্ষিত হয়ে পড়েছেন। তাই তাঁর পক্ষ নিয়ে কথা বলা সম্ভব নয়। রিপাবলিকান কংগ্রেস সদস্য লাভ সিএনএনকে বলেন, ‘আমি এখনো মনে করি, তাঁর ক্ষমা চাওয়া উচিত।’ লাভ গত নির্বাচনে ট্রাম্পের হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত হাইতিয়ান সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রচার চালিয়েছেন।

সূত্র : এএফপি, সিএনএন।



মন্তব্য