kalerkantho


অলিম্পিকসে অংশগ্রহণ

নমনীয় পিয়ংইয়ংয়ের সঙ্গে আলোচনা চায় সিউল

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দক্ষিণ কোরিয়া আগামী ৯ জানুয়ারি উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে উচ্চপর্যায়ের আলোচনায় বসার প্রস্তাব দিয়েছে। উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন সিউলের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়ন এবং আগামী মাসে দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠেয় শীতকালীন অলিম্পিকসে তাঁর দেশ অংশ নিতে পারে—এমন আভাস দেওয়ার পর গতকাল মঙ্গলবার দক্ষিণ কোরিয়া আলোচনার প্রস্তাব দিল।

নতুন বছর উপলক্ষে দেওয়া এক ভাষণে উন যুক্তরাষ্ট্রকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘পরমাণু বোমার সুইচ’ তার টেবিলেই রয়েছে। একই সঙ্গে অলিম্পিকসে তাঁর দেশের অংশগ্রহণ এবং আলোচনার আভাস দিয়ে বলেন, ‘এই সম্ভাবনা বাস্তবায়নে দুই দেশের দ্রুত বসা উচিত।’ তাঁর এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন। প্রস্তাবের বিষয়ে তিনি বলেন, আলোচনা শুরুর জন্য এটা দারুণ একটা সুযোগ হতে পারে।

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার ঐক্যবিষয়ক মন্ত্রী চো মিয়ং-গিওন তাঁর দেশের অবস্থানের কথা পুনর্ব্যক্ত করে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যেকোনো স্থানে যেকোনো সময় আমরা আলোচনার জন্য প্রস্তুত। সরকার আগামী ৯ জানুয়ারি পানমুনজমের পিচ হাউসে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে উচ্চপর্যায়ের আলোচনার প্রস্তাব করছে। আশা করছি, মুখোমুখি বসে উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধিদের গেমসে অংশ নেওয়ার বিষয়টি নিয়ে কথা বলব আমরা। সেই সঙ্গে পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট অন্য বিষয় নিয়েও কথা হবে।’

দুই দেশের সীমান্তে উত্তেজনা কমানোর লক্ষ্যে সর্বশেষ উচ্চপর্যায়ের আলোচনা হয়েছে ২০১৫ সালে। তবে কোনো সমঝোতা হয়নি।

দুই দেশের আলোচনার আগ্রহকে অবশ্য ইতিবাচকভাবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। ডনগুক বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রফেসর কো ইয়ু হোয়ান বলেন, এবারের আলোচনা অর্থপূর্ণ হবে। কেননা দুই পক্ষই সম্পর্কোন্নয়নে ইচ্ছুক। তবে বিপরীত আশঙ্কাও রয়েছে তাঁর। তিনি বলেন, আলোচনায় উত্তর কোরিয়া অগ্রহণযোগ্য দাবি-দাওয়া করে দক্ষিণ কোরিয়াকে কঠিন পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিতে পারে। তারা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বার্ষিক সামরিক মহড়া বাতিলের কথাও তুলতে পারে। সূত্র : এএফপি।

 



মন্তব্য