kalerkantho


মার্কিন নির্বাচনে রুশ প্রভাব

ফেসবুকে আপলোড হয় ৮ লাখ পোস্ট

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ফেসবুকে আপলোড হয় ৮ লাখ পোস্ট

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়া সংযোগ নতুন করে উত্তাপ ছড়াচ্ছে। অনলাইনভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক জানিয়েছে, গত দুই বছরে যুক্তরাষ্ট্রের ১২ কোটি ৬০ নাগরিক রাশিয়াভিত্তিক প্রতিষ্ঠান থেকে আপলোড করা নানা পোস্ট দেখেছে। ২০১৬ সালের নির্বাচনের আগে ও পরে অন্তত আট লাখ পোস্ট ফেসবুকে আপ করে এই প্রতিষ্ঠানগুলো। বেশির ভাগ পোস্টেই সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে বিভক্তি সৃষ্টিকারী বার্তা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে নির্বাচনে রুশ সংযোগ নিয়ে বিশেষ কাউন্সিলর রবার্ট মুয়েলারের নেতৃত্বে এফবিআই যে তদন্ত পরিচালনা করছে, তারই অংশ হিসেবে ট্রাম্পের প্রচার শিবিরের সাবেক দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ছাড়া এফবিআইয়ের তদন্তে মিথ্যা বলার দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন আরেক সাবেক কর্মকর্তা। ফলে ফেসবুক ও এফবিআইয়ের এই তৎপরতায় নতুন করে গতিশীল হয়েছে রাশিয়া কেলেঙ্কারি। যদিও নির্বাচনের আগে থেকেই রাশিয়া ও ট্রাম্প—দুই পক্ষই এ ধরনের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ জোর গলায় নাকচ করে আসছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জনপ্রিয় ক্ষেত্র ফেসবুক, টুইটার ও গুগলকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়া ব্যবহার করেছিল কি না সে সম্পর্কে জানতে সিনেটের দুটি শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা, যার একটি গতকাল সোমবার সম্পন্ন হওয়ার কথা ছিল। আরেকটিও শিগগিরই অনুষ্ঠিত হবে। সোমবার এই সিনেট শুনানি সামনে রেখেই ফেসবুক এ তথ্য প্রকাশ করে। তারা জানিয়েছে, ২০১৫ সালের জুন থেকে ২০১৭ সালের আগস্ট পর্যন্ত আট লাখ পোস্ট আপ করা হয়েছে, যা দুই কোটি ৯০ লাখ আমেরিকান সরাসরি দেখেছে। ফেসবুক জানিয়েছে, ক্রেমলিনভিত্তিক কম্পানি এই পোস্টগুলো তৈরি করে। এই পোস্টগুলোই পরে লাইক, শেয়ার, কমেন্টের মাধ্যমে আরো কয়েক কোটি ব্যবহারকারীর মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। ফেসবুক জানিয়েছে, তারা ১৭০টি ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট মুছে দিয়েছে। এই অ্যাকাউন্টগুলো থেকে এক লাখ ২০ হাজার পোস্ট আপ করা হয়।

ফেসবুকের আইনজীবী কলিন স্ট্রেচ বলেন, ‘ফেসবুকের সমাজ গড়া বা ইতিবাচক যেসব উদ্যোগ রয়েছে তার সঙ্গে এই বিষয়গুলো সংগতিপূর্ণ নয়। তবে এই নতুন হুমকি মোকাবেলায় আমরা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।’ এ মাসের গোড়ার দিকে ফেসবুকের এলিয়ট স্ক্রেজ ব্লগপোস্টে বলেন, ওই পোস্টগুলোর মধ্যে বেশ কিছু কম্পানির নীতিমালার মধ্যেই ছিল। তবে সেগুলোর সত্যতা ছিল না বলে সরিয়ে দেওয়া হয়। এই পোস্টগুলোর পেছনে যেসব রুশ নাগরিক রয়েছেন তাঁদেরও চিহ্নিত করা হয়নি।

গুগলও গত সোমবার জানিয়েছে, ইউটিউবের ১৮টি ভিন্ন চ্যানেলে রাশিয়ার তৈরি সহস্রাধিক রাজনৈতিক ভিডিও রয়েছে। তবে এগুলো খুব একটা দেখা হয়নি এবং এগুলো যে মার্কিন দর্শকদের লক্ষ্য করে তৈরি তেমনও কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। আর টুইটার রাশিয়াভিত্তিক ইন্টারনেট গবেষণা সংস্থার দুই হাজার ৭৫২টি অ্যাকাউন্ট স্থগিত করে দিয়েছে। এই অ্যাকাউন্টগুলো থেকে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৭ সালের নভেম্বর পর্যন্ত এক লাখ ৩১ হাজার টুইট করা হয়। বছরখানেক আগে এই সংকটকেই ‘পাগলামি’ বলে নাকচ করে দিয়েছিলেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ।

এদিকে ট্রাম্পের সাবেক প্রচার কর্মকর্তা পল ম্যানাফোর্ট ও রিক গেটসকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে অর্থ জালিয়াতিসহ যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে চক্রান্তের অভিযোগ আনা হয়েছে। তাঁরা দুজনই অবশ্য যথাক্রমে এক কোটি ও ৫০ লাখ ডলার জমা দিয়ে জামিন পেয়ে গৃহবন্দি অবস্থায় আছেন।

এদিকে ট্রাম্পের আরেক সহযোগী জর্জ পাপাডোপোসের বিরুদ্ধে তদন্তে মিথ্যা বলার অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। তিনি নিজেও বিষয়টি স্বীকার করেছেন। নির্বাচনের আগে রুশ নাগরিকদের সঙ্গে বৈঠক করার সময় নিয়ে তিনি মিথ্যাচার করেন। সূত্র : বিবিসি।



মন্তব্য