kalerkantho


আইএসের তাজমহল ওড়ানোর হুমকির পরই আগ্রায় জোড়া বিস্ফোরণ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের তাজমহল উড়িয়ে দেওয়ার হুমকির পরদিনই জোড়া বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল আগ্রা। গতকাল শনিবার তাজমহল থেকে মাত্র ৯ কিলোমিটার দূরে পর পর দুটি বিস্ফোরণ ঘটে।

সকালের দিকে এই জোড়া বিস্ফোরণের প্রথমটি ঘটে আগ্রা ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশনের কাছে রসুলপুরার একটি বাড়িতে আর দ্বিতীয়টি ঘটে ওই স্টেশনের গায়ে এক জঞ্জালের স্তূপে। তাজমহল উড়িয়ে দেওয়ার হুমকির সঙ্গে এই জোড়া বিস্ফোরণের কোনো যোগসূত্র রয়েছে কি না তা এখনো স্পষ্ট নয়। বিস্ফোরণে কেউ জখম হয়নি। বিস্ফোরণের কারণ খতিয়ে দেখতে এরই মধ্যে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক রয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, এদিন ভোর ৫টায় রসুলপুরার একটি বাড়িতে বিস্ফোরণ ঘটে। এক কলমিস্ত্রির বাড়িতে এই বিস্ফোরণ ঘটেছিল। ঘটনাটি ভোরে ঘটায় ওই এলাকার বেশির ভাগ বাসিন্দাই ঘুমিয়ে ছিল। বিস্ফোরণের বিকট শব্দে তাদের ঘুম ভাঙে।

ঘটনাস্থলে পুলিশ ও বম্ব স্কোয়াড পৌঁছায়। ওই বাড়িতে তল্লাশি চলার সময়ই আরো একটি বিস্ফোরণ ঘটে লাগোয়া স্টেশনের কাছে। আগ্রা ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশনের এক যাত্রী আনোয়ার উসমানি জানান, ৫ নম্বর প্ল্যাটফর্মে এক পাশে জমে থাকা আবর্জনার স্তূপে এই বিস্ফোরণ ঘটে। দুই জায়গায়ই ফরেনসিক টিম গেছে।

শুক্রবারই তাজমহলসহ দেশের বেশ কয়েকটি জায়গায় হামলা চালানোর হুমকি দেয় আইএস। আইএসঘেঁষা একটি সংবাদ-মাধ্যমগোষ্ঠী ‘আহ্ওয়াল উম্মত মিডিয়া সেন্টার’-এর অ্যাপে ছবিসহ এই খবর প্রকাশিত হয়।

সন্ত্রাসী হামলার হুমকিতে বাড়ল তাজমহলের নিরাপত্তা আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের হুমকির পর তাজমহলের নিরাপত্তা বাড়িয়েছে ভারত।

আনুষ্ঠানিক সতর্কতা জারি না হলেও ১৭ শতকের মার্বেল পাথরে নির্মিত স্থাপনাটির নিরাপত্তায় যেন কোনো ধরনের খুঁত না থাকে, সে জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তত্পরতা বেড়েছে বলে ‘দি হিন্দু’র এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

ছয় ঘণ্টা পর পর করা হচ্ছে মহড়া। নিবন্ধিত কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এতে অংশ নিচ্ছেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। অন্যান্য বাহিনীর সঙ্গে ভারতের সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সকেও তাজমহলের নিরাপত্তায় যুক্ত করা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, তাজমহল এবং এই সপ্তাহ থেকে শুরু হতে যাওয়া তাজ মহোৎসব ঘিরে এমনিতেই নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এর ওপর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হামলার হুমকির পর তা আরো বাড়ানো হয়েছে।

গত সপ্তাহে আইএসঘনিষ্ঠ একটি মিডিয়া গ্রুপে প্রকাশিত এক ছবিতে তাজমহলকে নতুন হামলার ‘নিশানা’ হিসেবে অভিহিত করা হয়।

গ্রাফিকস দিয়ে বানানো ওই ছবিতে সামরিক পোশাকে সজ্জিত এক জঙ্গিকে অ্যাসল্ট রাইফেল ও রকেটচালিত গ্রেনেড নিয়ে তাজমহলের কাছে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। একই গ্রাফিকসে তাজমহলের আরেকটি ছবির নিচে লেখা রয়েছে—‘নিউ টার্গেট’। সঙ্গে আরবি ভাষায় লেখা—‘আগ্রা ইস্তিহাদি’ (আগ্রায় শহীদ হওয়ার অপেক্ষায়)।

‘আহওয়াল উম্মত মিডিয়া সেন্টারে’র ওই ছবি মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টেলিগ্রামে প্রকাশিত হয় বলে জানায় জঙ্গি তত্পরতা পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ। এরপর তা অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

তত্পরতা বাড়ায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও। বৃহস্পতিবার তাজমহলসংলগ্ন যমুনা নদীর তীর এলাকায় ভারতের ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদেরও মহড়ায় অংশ নিতে দেখা গেছে।

পুলিশের এসপি সুশীল গুল ওই মহড়ায় নেতৃত্ব দেন বলে হিন্দুর প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। যমুনা নদী পার হওয়ার সময় তাঁর সঙ্গে তাজমহলে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা ছাড়াও সোয়াট ও বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দলের সদস্যদের দেখা গেছে।

সিনিয়র পুলিশ সুপারিনটেনডেন্ট প্রীতিন্দর সিং জানান, তাঁরা কোনো হুমকি পাননি, তাই আনুষ্ঠানিক কোনো সতর্কতাও জারি হয়নি।

এর পরও গণমাধ্যমের প্রতিবেদন দেখে তাজমহল এলাকার নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে।

এদিকে ১৮ মার্চ থেকে আগ্রায় শুরু হবে ১০ দিনের তাজ মহোৎসব; তাজমহলের পূর্ব দিকের প্রবেশপথ থেকে মূল উৎসবস্থল শিল্পগ্রামের দূরত্ব মাত্র এক কিলোমিটার।

উৎসব ও তাজমহলের জন্য বাড়তি নিরাপত্তার অংশ হিসেবে এখন প্রতি ছয় ঘণ্টা পর পর একজন নিবন্ধিত কর্মকর্তার উপস্থিতিতে মহড়া অনুষ্ঠিত হচ্ছে বলে জানান তিনি। ‘আমরা সারা বছরই তাজমহলসহ গুরুত্বপূর্ণ সব স্থাপনায় যেকোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকি। তাজমহলের নিরাপত্তা সময় অনুযায়ী পর্যালোচনা করা হয় এবং প্রয়োজন অনুযায়ী বাড়ানো-কমানো হয়’, বলেন প্রীতিন্দর। তবে আগ্রা জোনের ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল মহেশ কুমার মিশ্র তাজমহলে হামলার হুমকি বিষয়ে গোয়েন্দাদের কাছ থেকে কোনো তথ্য পেয়েছেন কি না, তা বলতে রাজি হননি। সূত্র : এএফপি, আনন্দবাজার।


মন্তব্য