kalerkantho


ইউরোপীয় আদালতের রায়

কর্মস্থলে হিজাব পরা নিষিদ্ধ করা যাবে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ইউরোপের শীর্ষ আদালত এক রায়ে বলেছেন, কোনো প্রতিষ্ঠানে হিজাব নিষিদ্ধ করা বৈষম্যমূলক আচরণের মধ্যে পড়বে না। যদি সেই প্রতিষ্ঠানের সব কর্মচারীর জন্য তৈরি আচরণবিধিতে ধর্মীয় পোশাক নিষিদ্ধ থাকে তাহলে শুধু হিজাবের জন্য একে অবৈধ বলা যাবে না।

ইউরোপের শীর্ষ আদালত গতকাল মঙ্গলবার দেওয়া এক রায়ে জানিয়েছেন, চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান তার কর্মচারীদের হিজাবসহ যেকোনো রকম রাজনৈতিক, দার্শনিক অথবা ধর্মীয় পরিচয় লোকের সামনে দৃশ্যত তুলে ধরে—এমন পোশাক বা প্রতীক পরা নিষিদ্ধ করতে পারবে। তবে একই সঙ্গে ইউরোপের বিচার আদালত জানান, সব কর্মচারীর সাজপোশাক নিরপেক্ষ রাখার নিজস্ব নীতির ওপর ভিত্তি করে কর্মদাতা প্রতিষ্ঠানকে এই সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এটা কোনো একজন ভোক্তার ব্যক্তিগত ইচ্ছার ভিত্তিতে করা যাবে না।

বেলজিয়ামে জি ফোর এস কম্পানির এক রিসেপশনিস্ট সামিরা আচবিতাকে হিজাব পরার কারণে চাকরি থেকে বরখাস্ত করার এক মামলায় ইউরোপীয় বিচার আদালত এই রায় দিলেন। বেলজিয়ামের আদালত আইনি ব্যাখ্যার জন্য ইউরোপের সর্বোচ্চ আদালতে এই মামলা হস্তান্তর করেছিলেন।

আচবিতা তিন বছর ওই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করার পর হিজাব পরতে শুরু করেন। সে সময় তাঁকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। তিনি দাবি করেন, ধর্মীয় কারণে তাঁর প্রতি বৈষম্য করা হয়েছে।

আদালত বলেন, তাদের নতুন নিয়মবিধিতে সাজপোশাকে এ ধরনের বিশ্বাসের প্রদর্শন কোনো একটি ধর্ম বা বিশ্বাসের ক্ষেত্রে যেহেতু প্রযোজ্য নয়, তাই এটি বৈষম্যমূলক বলে বিবেচিত হবে না।

সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য