kalerkantho


ব্রিটিশ জাহাজের ধাক্কায় তছনছ ইন্দোনেশিয়ার প্রবালপ্রাচীর

ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা, ক্ষতিপূরণ দাবি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ব্রিটিশ জাহাজের ধাক্কায় তছনছ ইন্দোনেশিয়ার প্রবালপ্রাচীর

ইন্দোনেশিয়ার রাজা আমপাত এলাকায় ব্রিটিশ প্রমোদতরীর আঘাতে প্রবালপ্রাচীর গুঁড়িয়ে গিয়ে সাদা হয়ে গেছে। ইন্দোনেশিয়া মেরিন সিকিউরিটি এজেন্সি সোমবার তোলা এ ছবি গতকাল প্রকাশ করে। ছবি : এএফপি

ইন্দোনেশিয়ার সবচেয়ে পুরনো এবং একই সঙ্গে পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণীয় এক প্রবালপ্রাচীরে ব্রিটিশ প্রমোদতরির আঘাতে বড় রকমের ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করছে স্থানীয়রা। এ ক্ষতি পূরণ হতে শত বছর লেগে যেতে পারে—এমন কথাও বলছে কেউ কেউ। উঠেছে ক্ষতিপূরণের দাবিও।

গত ৪ মার্চ ব্রিটিশ কম্পানি নোবেল ক্যালেডোনিয়ার মালিকানাধীন ক্যালেডোনিয়ান স্কাই নামের জাহাজের ধাক্কায় ইন্দোনেশিয়ার পাপুয়া প্রদেশে রাজা আমপাত এলাকার প্রবালপ্রাচীর ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রাথমিক পর্যবেক্ষণ শেষে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এক হাজার ৬০০ বর্গমিটার এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত  হয়েছে।

পর্যবেক্ষকদের মধ্যে ছিলেন ইউনিভার্সিটি অব পাপুয়ার প্রশান্ত মহাসাগরীয় সমুদ্রসম্পদবিষয়ক গবেষণাকেন্দ্রের প্রধান রিকার্ডো তাপিলাতু। তিনি জানান, ভাটায় আটকে যাওয়া জাহাজটি টাগবোট দিয়ে টেনে আনতে গিয়ে বিপত্তিটা ঘটেছে। তিনি বলেন, ‘জোয়ার আসা পর্যন্ত তাদের অপেক্ষা করা উচিত ছিল। ’ নোবেল ক্যালেডোনিয়ার ১২ লাখ ৮০ হাজার থেকে ১৯ লাখ ২০ হাজার ডলার ক্ষতিপূরণ দেওয়া উচিত বলে তিনি মনে করেন।

রাজা আমপাতের পর্যটন ব্যবসায়ী রুবেন সইয়া বলেন, ‘এখানকার কিছু লোক জেলে অথবা কৃষক হিসেবে জীবিকা নির্বাহ করে। কিন্তু বেশির ভাগ লোক পর্যটন খাতে কাজ করে।

’ পর্যটন খাতের ওপর নির্ভরশীল মানুষের জন্য প্রবালপ্রাচীরে এ আঘাত অপূরণীয় ক্ষতি বলে তিনি মন্তব্য করেন। ওই ঘটনার পর থেকে তিনি পর্যটকদের প্রবালপ্রাচীরের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার দিকে নিয়ে যাচ্ছেন না জানিয়ে বলেন, ‘পর্যটকদের ওখানে নিয়ে যেতে আমার দুঃখ হয় এবং লজ্জা লাগে। ’ প্রবালপ্রাচীরে আঘাতের ফলে যে ক্ষতি হয়েছে, তা পূরণ হতে ১০ থেকে ১০০ বছর লাগতে পারে—এমন মন্তব্যও করেন তিনি। ইন্দোনেশিয়ার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বইছে সমালোচনার ঝড়। সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য