kalerkantho


তুর্কি গণভোটের প্রচার

ডাচ-তুরস্ক সম্পর্কে তিক্ততা চরমে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



তুরস্কের সংবিধান সংশোধনের গণভোটের প্রচার চালানো নিয়ে ইউরোপীয় দেশগুলোর সঙ্গে তিক্ততা বাড়ছে। বিশেষ করে নেদারল্যান্ডসে বসবাসরত তুর্কিদের মধ্যে প্রচার চালাতে গিয়ে তুরস্কের দুই মন্ত্রীর নাজেহাল হওয়ার পর এ দুটি দেশের মধ্যে উত্তেজনা চরমে উঠেছে। প্রথমে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পরে পরিবার বিষয়ক মন্ত্রীকে প্রচার চালানোর কাজে নেদারল্যান্ডসে ঢুকতে না দেওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে তুরস্ক। তুরস্কে অবস্থিত ডাচ দূতাবাস ও এর কনস্যুলেটগুলোকে গত শনিবার সিলগালা করে দেওয়া হয়। এ নিয়ে দূতাবাসগুলোর সামনে তুরস্কে নাগরিকরা বিক্ষোভ করছে। একই সঙ্গে বিক্ষোভ চলছে নেদারল্যান্ডসের তুর্কি দূতাবাসের সামনেও।

বলে রাখা ভালো, আগামী ১৬ এপ্রিল তুরস্কে সংবিধান সংশোধন বিষয়ক গণভোট অনুষ্ঠিত হবে। এতে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ানের ক্ষমতা আরো বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে। তুরস্কের বহু ভোটার ইউরোপের নানা দেশে বাস করে। এর মধ্যে জার্মানিতে থাকে ১৪ লাখ এবং নেদারল্যান্ডসে তুর্কির সংখ্যা চার লাখ। এসব ভোটারের মধ্যে প্রচার চালাতেই সম্প্রতি ইউরোপের বিভিন্ন দেশ সফর শুরু করেছেন এরদোয়ানের মন্ত্রীরা।

তবে বিদেশে নির্বাচনী প্রচারের বিষয়টিতে মোটেই সুদৃষ্টিতে দেখছে না ওই সব দেশের সরকাররা। এরই মধ্যে জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, অস্ট্রিয়া ও সুইজারল্যান্ড এ ধরনের প্রচারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে; যা মোটেই ভালোভাবে নেয়নি তুরস্ক। নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে সংকটের সূত্রপাত হয় তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান দেশটিতে নামতে বাধা দেওয়ার পর। এরপর গত শনিবার সড়কপথে তুরস্কের পরিবার বিষয়ক মন্ত্রী ফাতমা বেতুল সায়ান কায়াকে নেদারল্যান্ডসের রটেরডাম শহরে অবস্থিত তুর্কি কনস্যুলেটে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। প্রতিবাদে টার্কিশ কনস্যুলেটের সামনে বিক্ষোভ করে শত শত প্রবাসী তুর্কি। এ নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন এরদোয়ান। তিনি ডাচদের ‘নাৎসিদের অবশিষ্ট’ আর উগ্রবাদী বলে মন্তব্য করেছন। তিনি হুমকি দিয়েছেন, পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে তুরস্কে ডাচ বিমান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হবে।

একই সঙ্গে নিরাপত্তার দোহাই দিয়ে আংকারায় অবস্থিত ডাচ দূতাবাস এবং ইস্তাম্বুলের কনস্যুলেট ভবন সিলগালা করে দিয়েছে তুরস্ক সরকার। দূতাবাস ও কনস্যুলেট ভবনে কাউকে ঢুকতে ও বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য