kalerkantho


চার রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রিত্বের দৌড়ে কোন দলের কারা এগিয়ে?

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



চার রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রিত্বের দৌড়ে কোন দলের কারা এগিয়ে?

ভারতের চার রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলে উত্তর প্রদেশ ও উত্তরাখণ্ডে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে বিজেপি জয়ী হয়েছে। পাঞ্জাবে ফের এক দশক পরে ক্ষমতা দখল করেছে কংগ্রেস। এদিকে মণিপুর ও গোয়ায় বিজেপি-কংগ্রেস কোনো দলই নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। এখন দেখার বিষয় সেখানে কোন দল সরকার গঠন করে। একনজরে দেখে নেওয়া যাক চার রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে কোন মুখগুলো উঠে আসছে।

কেশব প্রসাদ মৌর্য (উত্তর প্রদেশ) : উত্তর প্রদেশে বিজেপি রাজ্যপ্রধান কেশব প্রসাদ মৌর্য। তিনি লোকসভায় ফুলপুর কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হয়েছিলেন। এবারের নির্বাচনের পরে তিনি উত্তর প্রদেশে মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে সবচেয়ে এগিয়ে। বিজেপির এই জয়ের পেছনে বড় কারিগর তিনি। মৌর্য যাদব সম্প্রদায়ের নন সেটা তাঁর পক্ষে যেতে পারে। আর যেটা বিপক্ষে যেতে পারে সেটা হলো তাঁর সেভাবে প্রশাসনিক কোনো অভিজ্ঞতা না থাকা।

রাজনাথ সিং (উত্তর প্রদেশ) : ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং শেষবার এ রাজ্যে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। তিনি দুইবার এ রাজ্যের বিজেপি সভাপতিও থেকেছেন। নির্বাচনের আগে তিনি সারা রাজ্যে ১২০টি ছোট-বড় জনসভা করেছেন। দলের জয়ে অন্যতম অবদান রেখেছেন। তবে প্রশ্ন হলো, কেন্দ্রের গুরুত্বপূর্ণ পদ ছেড়ে তাঁকে উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য বেছে নেবে কি না বিজেপি।

মনোজ সিনহা (উত্তর প্রদেশ) : উত্তর প্রদেশের গাজিপুরের এই সাংসদ অন্যতম দাবিদার মুখ্যমন্ত্রিত্বের। বর্তমানে তিনি টেলিকম ও রেল প্রতিমন্ত্রীর কাজ সামলাচ্ছেন। দলের ও দলের কর্মীদের মধ্যে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে ভালোই। নিজের পূর্ব-উত্তর প্রদেশের আসনেও তিনি সমান জনপ্রিয়।

যোগী আদিত্যনাথ (উত্তর প্রদেশ) : ওপরের তিনজন বাদে উত্তর প্রদেশের আর এক হেভিওয়েট বিজেপি নেতা ও সাংসদ যোগী আদিত্যনাথ মুখ্যমন্ত্রিত্বের দৌড়ে রয়েছেন। তবে এই হিন্দুত্ববাদী নেতার একপেশে রাজনীতি তাঁর ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে পারে। বরুণ গান্ধীও এই দৌড়ে রয়েছেন।

বিসি খাণ্ডুরী (উত্তরাখণ্ড) : উত্তরাখণ্ডে বিজেপি পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও কে মুখ্যমন্ত্রী হবেন তা এখনো নিশ্চিত নয়। বিজেপির তরফে কোনো প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়নি। তবে উত্তরাখণ্ডের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বিসি খাণ্ডুরী পদের দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন। তবে ৮২ বছর বয়সী এই নেতাকে পদ দেওয়া হয় কি না, সে নিয়ে আলোচনা আছে।

বিজয় বহুগুণা (উত্তরাখণ্ড) : বহুদিনের কংগ্রেস নেতা বিজয় বহুগুণা নির্বাচনের আগে বিজেপিতে যোগ দেন। তিনি মুখ্যমন্ত্রিত্বের পদের দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন বলে দলীয় সূত্রে খবর। এ ছাড়া রমেশ পখরিয়াল, ভগত সিং কোশিয়ারী ও অজয় ভাট রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রিত্বের দৌড়ে।

চৌবা সিং (মণিপুর) : মণিপুরে বিজেপি সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। তবে যদি অন্যদের মদদে কংগ্রেসকে সরিয়ে বিজেপি সরকার গঠন করে তাহলে চৌবা সিং এগিয়ে থাকবেন। তিনি অটল বিহারি বাজপেয়ির আমলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ছিলেন। তিনবার লোকসভার সাংসদ ও একবার উপমুখ্যমন্ত্রীও ছিলেন।

এন বীরেন সিং (মণিপুর) : হেইনগ্যাং বিধানসভা থেকে এন বীরেন সিং পরপর তিনবার নির্বাচনে জিতেছেন। তিনি এখন কংগ্রেস দলে রয়েছেন। সাবেক ফুটবলার বীরেন সিং বিএসএফ জলন্ধর দলের হয়ে খেলেছেন। তিনি একসময় সাংবাদিকতাও করেছেন।

মনোহর পারিকর (গোয়া) : গোয়ায় বিজেপি-কংগ্রেস একেবারে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে। কেউই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। গোয়ায় বিজেপি ক্ষমতায় ফিরলে আগের মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পারিকরকে ফেরানো হতে পারে। ২০১৪ সালে তিনি মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে পদত্যাগ করে কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছেন।

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।


মন্তব্য