kalerkantho


ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা নিয়ে উত্তর কোরিয়ার দাবি

জাপানের মার্কিন ঘাঁটিতে হামলার অনুশীলন!

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



জাপানের মার্কিন ঘাঁটি লক্ষ্য করে হামলার অনুশীলনের জন্যই গত সোমবার ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয় বলে দাবি করেছে উত্তর কোরিয়া। চারটি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয় সোমবার, এর তিনটিই গিয়ে পড়ে জাপানের মার্কিন ঘাঁটির কাছাকাছি এলাকায়। নির্দ্বিধায় যাকে উসকানি হিসেবে ধরে নেওয়া যেতে পারে। ঘটনার পরপরই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর জাপান ও দক্ষিণ কোরীয় মিত্রদের ফোন করে এই দেশ দুটির নিরাপত্তায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন।

শুধু প্রতিশ্রুতিই নয়, এক দিনের মাথায়ই দক্ষিণ কোরিয়ায় অত্যাধুনিক টার্মিনাল হাই অ্যালটিটুড এরিয়া ডিফেন্স (থাড) ক্ষেপণাস্ত্র-বিধ্বংসী ব্যবস্থা মোতায়েনও শুরু করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা ভেঙে উত্তর কোরিয়ার এই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা নিয়ে এরই মধ্যে বিশ্বজুড়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে। নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিয় গুতেরেস। আজ বুধবার এ বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বসার কথা।  

এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউস বলেছে, এই তৎপরতার জন্য ‘চড়া মূল্য দিতে হবে’ উত্তর কোরিয়াকে। জাতিসংঘের প্রস্তাব অনুসারে পিয়ংইয়ং ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রযুক্তি ব্যবহার করতে পারে না। জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হলে এক টুইটে বলেন, উত্তর কোরিয়াকে ‘এই ধ্বংসাত্মক পথে’ চলতে দেওয়া হবে না।

এ ঘটনার পরপরই জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবেকে ফোন করেন ট্রাম্প। নিরাপত্তার বিষয়ে নিশ্চিত করেন তিনি। এ সময় আবে থাড সিস্টেম মোতায়েনের বিষয়ে ট্রাম্পকে অনুরোধ করেন।  

দক্ষিণ কোরিয়ায় থাড সিস্টেম : ট্রাম্প-আবের ফোনালাপের পর দক্ষিণ কোরিয়ায় থাড সিস্টেম মোতায়েনের সিদ্ধান্ত হয়। বিষয়টি নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট হওয়াং কাইয়ো-আহনের সঙ্গে ট্রাম্প কথা বলেন। থাড সিস্টেম মোতায়েন শুরুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্যাসিফিক কমান্ড। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য