kalerkantho


ট্রাম্পের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান এফবিআই প্রধানের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ট্রাম্পের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান এফবিআই প্রধানের

জেমস কোমি

নির্বাচনের মাসখানেক আগে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তাঁর ফোনে আড়ি পেতেছিলেন বলে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে অভিযোগ তুলেছেন তা প্রত্যাখ্যান করেছেন এফবিআই প্রধান জেমস কোমি। শনিবার এক টুইটে ওই অভিযোগ তুলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প লেখেন, ‘ভয়ানক! এইমাত্র জানতে পারলাম নির্বাচনে জয়লাভের মাত্র কিছুদিন আগে ওবামা ট্রাম্প টাওয়ারে আমার টেলিফোনে আড়ি পেতেছিলেন।

কিছুই পাননি। কতটা নিচে নেমে প্রেসিডেন্ট ওবামা খুবই শুদ্ধ একটি নির্বাচন প্রক্রিয়ার মধ্যে আমার ফোনে আড়ি পাতার মতো কাজ করলেন। এটা নিক্সন/ওয়াটারগেটের মতো খারাপ (অথবা অসুস্থ) মানুষ!’ ট্রাম্পের অভিযোগের পর এটি তদন্ত করে দেখতে রবিবার কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে হোয়াইট হাউস।

ওই দিনই নিউ ইয়র্ক টাইমসের একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগের কাছে ট্রাম্পের আড়ি পাতার অভিযোগটি মিথ্যা এবং অবশ্যই সংশোধন করা দরকার বলে আর্জি জানান এফবিআইয়ের পরিচালক জেমস কোমি। কিন্তু বিচার বিভাগ তাত্ক্ষণিকভাবে তাঁর অনুরোধে সাড়া দেয়নি। প্রতিবেদনটিতে যুক্তরাষ্ট্রের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বরাতে এসব কথা জানানো হয়। তাঁদের বরাতে যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যম জানিয়েছে, ট্রাম্পের অভিযোগের পক্ষে কোনো প্রমাণ নেই বলে কোমি বিশ্বাস করেন।

২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণা চলাকালে তদন্তকারী কর্তৃপক্ষ হিসেবে ওবামা প্রশাসন ক্ষমতার অপব্যবহার করেছিল কি না, তা তদন্ত করে দেখতে রিপাবলিকান সংখ্যাগরিষ্ঠ কংগ্রেসের প্রতি আর্জি জানিয়েছে হোয়াইট হাউস। ওই নির্বাচনকে রাশিয়া প্রভাবিত করেছিল কি না, তা নিয়ে কংগ্রেসের চলমান তদন্তের অংশ হিসেবে অভিযোগটিকে অন্তর্ভুক্ত করার আর্জি জানানো হয়েছে।

‘ওই সময়ে একজন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে ট্রাম্পের বা তাঁর প্রচারণা শিবিরের বিরুদ্ধে আড়ি পাতার মতো কোনো তত্পরতা চালানো হয়নি’—এনবিসি টেলিভিশনের ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক প্রধান জেমস ক্লাপার।

ওবামার এক মুখপাত্র অভিযোগটি অস্বীকার করে বলেছেন, হোয়াইট হাউসের কোনো কর্মকর্তা স্বাধীন বিচার বিভাগের কোনো তদন্তে হস্তক্ষেপ করতে পারেন না। রাশিয়ার সঙ্গে সম্ভাব্য যোগাযোগ নিয়ে চলা বিতর্ক থেকে মনোযোগ সরাতে ট্রাম্প এসব অভিযোগ তুলেছেন বলে পাল্টা অভিযোগ করেছেন ডেমোক্র্যাটরা। সূত্র : বিডিনিউজ।


মন্তব্য