kalerkantho


মসুলে নিহত নারী সাংবাদিকের প্রতি শ্রদ্ধা

‘শিফারাই পারতেন কাচের ছাদে ফাটল ধরাতে’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



‘শিফারাই পারতেন কাচের ছাদে ফাটল ধরাতে’

ইরাকের মসুলে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে চলমান লড়াইয়ে শিফা গার্দি নামের এক নারী সাংবাদিক নিহত হয়েছেন। ইরাকি কুর্দি টিভি স্টেশন রুদায় কর্মরত ৩০ বছর বয়সী শিফা গত শনিবার রাস্তার পাশে পেতে রাখা বোমা বিস্ফোরণে নিহত হন। এ সময় তাঁর ক্যামেরাম্যান ইউনিস মুস্তাফা আহত হন।

জাতিসংঘে কুর্দি সরকারের প্রতিনিধি এবং সাবেক সাংবাদিক বায়ান সামি রাহমান এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘কুর্দিস্তান একজন সাহসী ও দক্ষ সাংবাদিককে হারাল। এঁদের মতো সাংবাদিকরাই কাচের ছাদে ফাটল ধরাতে পারেন। ’

শিফা তাঁর মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগেও টেলিভিশনে সরাসরি অনুষ্ঠান সম্প্রচার করেছেন। ওই সময় তিনি পশ্চিম মসুল থেকে খবর সংগ্রহ করছিলেন। তাঁর পেছনে দেখা যাচ্ছিল ইরাকি বাহিনীর লড়াইয়ের দৃশ্য। শিফা কুর্দি মিডিয়ায় কাজ শুরু করেন ২০১৩ সালে। গত শনিবার থেকে এই চ্যানেলটির ওয়েবসাইটে শিফার স্মৃতিচারণা চলছে। তাদের প্রকাশ করা ছবিতে দেখা যায়, শিফার খালি চেয়ার-টেবিল ফুলে ফুলে ভরে উঠেছে।

গত সপ্তাহেই মসুলের যুদ্ধক্ষেত্র থেকে একটি খরগোশ উদ্ধার করেন তিনি। ওয়েবসাইটে সেই বিষয়টিও উল্লেখ করা হয়। ওই খরগোশটি সঙ্গে নিয়েই নিউজরুমে ফেরেন তিনি। ছোট্ট ওই প্রাণী পুষ্টিহীনতায় ভুগছিল। তার মুখে ক্ষতচিহ্নও ছিল। শিফার ইচ্ছা ছিল, খরগোশটি সুস্থ হলে তাকে কোনো প্রাণী সংরক্ষণাগারে দিয়ে আসা হবে।

শিফার জন্ম ১৯৮৬ সালে ইরানের এক শরণার্থী পরিবারে। ইরবিলের সালাহাদ্দিন ইউনিভার্সিটি থেকে তিনি স্নাতক সম্পন্ন করেন। তাঁর সাংবাদিকতার পেশা শুরু হয় ২০০৬ সালে। গতকাল ইরবিলেই তাঁকে সমাহিত করা হয়।

রুদা থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘শিফা গার্দি চ্যানেলের সবচেয়ে জনপ্রিয় সাংবাদিকদের অন্যতম। ’ কুর্দিস্তান আঞ্চলিক সরকারের পররাষ্ট্র সম্পর্ক দপ্তরের মন্ত্রী ফালাহ মুস্তাফা এক টুইটে শিফাকে ‘সাহসী সাংবাদিক’ এবং ‘নারীদের জন্য অনুকরণীয়’ বলে আখ্যা দেন।

শিফার মৃত্যু প্রসঙ্গে নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক কমিউনিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট (সিপিজে) বলেছে, ইরাকে পেশাগত দায়িত্ব পালনও কতটা ঝুঁকিপূর্ণ, এই মৃত্যু থেকেই তা স্পষ্ট হয়ে যায়।

সূত্র : আলজাজিরা, সিএনএন।


মন্তব্য