kalerkantho


সীমান্তে দেয়াল তৈরির প্রক্রিয়া শুরু মার্চেই

যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করল মেক্সিকো

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করল মেক্সিকো

সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের অর্থ জোগাড়ে মেক্সিকোর থেকে আমদানি পণ্যের ওপর এক তরফা শুল্ক আরোপের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে দিয়েছে দেশটি। মেক্সিকোর পররাষ্ট্রমন্ত্রী লুইস ভিদাগারাভ বলেছেন, এ রকম কিছু করা হলে এর পাল্টা জবাব দেওয়া হতে পারে। এ ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র থেকে মেক্সিকোতে রপ্তানি করা সুনির্দিষ্ট কিছুু পণ্যের ওপরও মেক্সিকোর সরকার শুল্ক আরোপ করতে পারে।

এর আগে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পরিকল্পনা অনুযায়ী খুব শিগগিরই দেয়াল নির্মাণের কাজ শুরুর অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। যুক্তরাষ্ট্র সরকার জানায়, আগামী মাস থেকেই তারা প্রস্তাবিত নকশা গ্রহণের কাজ শুরু করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের শুল্ক বিভাগ ও সীমান্ত রক্ষা সংস্থা জানায়, তারা আগামী ৬ মার্চের মধ্যে দেয়াল নির্মাণের নকশা জমা দেওয়ার আহ্বান জানাবে। প্রস্তাব জমা দেওয়া কম্পানিগুলোর মধ্য থেকে ভালো কম্পানি বাছাই করে ২০ তারিখের মধ্যে একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা করে তাদের ডাকা হবে।

শুক্রবার মেরিল্যান্ডে কনজারভেটিভ পলিটিক্যাল অ্যাকশন কংগ্রেসে (সিপিএসি) দেওয়া ভাষণে ট্রাম্প বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকের স্বার্থই আগে। তিনি সীমান্তে বিশাল দেয়াল নির্মাণের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণ করতে যাচ্ছি। নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী এটি খুব শিগগিরই শুরু হতে যাচ্ছে।

ট্রাম্প আরো বলেন, এ দেয়াল নির্মাণের ব্যয় মেক্সিকো দেবে। ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটির প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে রয়টার্সের খবরে বলা হয়, এটি নির্মাণে প্রায় ২১.৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে। তবে এ ব্যয় ডোনাল্ড ট্রাম্পের ব্যয়ের ধারণার চেয়ে অনেক বেশি। ট্রাম্প এটি নির্মাণে ১২ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ের ধারণা দেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রস্তাব অনুযায়ী, এ সীমান্ত দেয়াল নির্মাণে মেক্সিকোকে যুক্তরাষ্ট্রের রপ্তানি পণ্যের ওপর ২০ শতাংশ শুল্ক দিতে হবে।

এ ব্যাপারে শুক্রবার একটি রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ভিদাগারাভ বলেন, ‘মেক্সিকো অবাধ বাণিজ্যে বিশ্বাস করে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র দেয়াল নির্মাণের ব্যয় তুলে নিতে এক তরফাভাবে শুল্ক আরোপ করলে এর পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে মেক্সিকোও যুক্তরাষ্ট্রের কিছু পণ্যের শুল্ক আরোপ করবে। ’

ট্রাম্প তাঁর ভাষণে বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে খারাপ লোকদের প্রবেশ বন্ধ করতে শিগগিরই আমরা পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছি। ’ যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধ অভিবাসীদের বড় অংশই মেক্সিকো থেকে আসা। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরের সময় অভিবাসী ইস্যুতে মেক্সিকো তাদের উদ্বেগ ও বিরক্তি প্রকাশ করেছিল। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।


মন্তব্য