kalerkantho


রাস্তার দাবিতে মাটিতে বুক ঘষতে ঘষতে বিধানসভায়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



রাস্তার দাবিতে মাটিতে বুক ঘষতে ঘষতে বিধানসভায়

তাঁর বিধানসভা এলাকায় রাস্তার অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। তা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী, পূর্তমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহনমন্ত্রীকে বারবার চিঠিও লিখেছেন। কিন্তু লাভ হয়নি। প্রায় ৩৭ কিলোমিটার রাস্তায় কোথাও পিচের ছোঁয়া লাগেনি। তা নিয়ে প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে পায়জামা-কুর্তা ছেড়েছেন বিহারের পশ্চিম চম্পারণ জেলার লোরিয়ার বিজেপি বিধায়ক বিনয় বিহারী। যেখানেই যান হাফপ্যান্ট আর স্যান্ডো গেঞ্জি পরে যান। তাঁকে দেখে অস্বস্তিতে পড়েন দলের অন্য বিধায়করা। বিরোধী দলের লোকরা তো এড়িয়েই চলেন। তাতেও কাজ না হওয়ায় অবশেষে মাটিতে বুক ঘষে ঘষে বিধানসভায় হাজির হলেন বিনয়।

নিজের এলাকার রাস্তার দাবিতে ‘এই পথ’ ছাড়তে রাজি নন বিনয়। বৃহস্পতিবার রাজ্য বিধানসভার বাজেট অধিবেশনের শুরুর দিনেও নিজের দাবিতে অটল ছিলেন তিনি।

বিধানসভার গেট থেকে মাটিতে বুক ঘষতে ঘষতে সভাকক্ষে নিজের আসনে পৌঁছেন তিনি। বিনয় বিহারীর এমন কাণ্ডে সবাই কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে পড়েন। বিনয় বলেন, ‘আমার নিজের এলাকায় রাস্তা তৈরির জন্য গান্ধীজির পথই আমি বেছে নিয়েছি। ’

বৃহস্পতিবার সকালে বিধানসভার গেটে তাঁকে মাটিতে শুয়ে বুক ঘষে ঘষে এগোতে দেখে সংবাদ মাধ্যমের ভিড় জমে যায়। বিধানসভার কর্মী থেকে শুরু করে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ, সবাই জুটে যান বিধায়কের আশপাশে। অন্য বিধায়করাও দূরে দাঁড়িয়ে ‘মজা দেখতে’ থাকেন। তবে তাতে দমে যাননি বিনয়। তাঁর হাঁটু কেটে রক্ত পড়তে থাকে। নিঃশ্বাস নিতে সমস্যা হয়। এই পরিস্থিতিতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা অফিসাররা কী করবেন বুঝতে পারছিলেন না।

রাজ্যপাল রামনাথ কোবিন্দের ভাষণের পর সভা থেকে বের হন বিনয়। তাঁর সাফ কথা, ‘বেতিয়ার মনুয়া সেতু থেকে নবলপুর হয়ে রতবলপুর যাওয়ার প্রায় ৩৭ কিলোমিটারই বিহারের সবচেয়ে খারাপ রাস্তা। এলাকার মানুষের অবস্থা বেহাল। বিহারকে উত্তর প্রদেশের সঙ্গে জুড়ছে এই রাস্তা। এই রাস্তা তৈরির জন্যই লড়াই। ’ তিনি জানিয়েছেন, যত দিন না তাঁর এলাকায় রাস্তা হবে তত দিন কোনো পোশাক পরবেন না। মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার ও কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহনমন্ত্রী নিতিন গড়কড়িকে চিঠি দিয়েছেন। তাঁর ক্ষোভ, ‘গত তিন বছর ধরে গড়কড়িকে চিঠি দিচ্ছি। কিন্তু রাস্তা তৈরি হচ্ছে না। ’ তবে বিনয়ের ক্ষোভ নিয়ে মুখে কুলুপ বিজেপির। দলের নেতা সুশীল মোদি থেকে রাজ্য সভাপতি নিত্যানন্দ রায়, সবারই এক উত্তর, খবর নিয়ে দেখবেন।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।


মন্তব্য