kalerkantho


দ্বিধা ঝেড়ে ট্রাম্পের ছাতার নিচে রক্ষণশীলরা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



দ্বিধা ঝেড়ে ট্রাম্পের ছাতার নিচে রক্ষণশীলরা

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর ডোনাল্ড ট্রাম্পকে এখন সাদরে বরণ করতে, এমনকি তাঁর নেতৃত্বে একাট্টা হতে প্রস্তুত দেশের রক্ষণশীলরা। তাদের চার দিনব্যাপী বার্ষিক সম্মেলনে ট্রাম্পের ভাষণ দেওয়ার কথাও ঠিকঠাক। অথচ আগের সম্মেলনেই ট্রাম্প যথেষ্ট রক্ষণশীল নন বলে সমালোচনা করেছিল তারা।

রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসির কাছেই চলছে কনজারভেটিভ পলিটিক্যাল অ্যাকশন কনফারেন্স (সিপিএসি)। গত বুধবার থেকে শুরু হওয়া এ সম্মেলন আজ শনিবার শেষ হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের গতকালই সম্মেলনে ভাষণ দেওয়ার কথা। এর আগের দিন বৃহস্পতিবার এতে বক্তব্য দেন তাঁর অন্যতম উপদেষ্টা কেলিয়ান কনওয়ে। সম্মেলনে ট্রাম্পের আগমন উপলক্ষে এদিন তিনি বলেন, ‘আগামীকালের মধ্যেই এটা (সিপিএসি) হতে যাচ্ছে টিপিসিএ। ’ টিপিসিএ বলতে তিনি ‘ট্রাম্প পলিটিক্যাল অ্যাকশন কনফারেন্স’ বোঝান। কেলিয়ানের যুক্তি, ‘প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের জয়ী হওয়ার যোগ্যতা নিয়ে যে সন্দেহ প্রকাশ করা হচ্ছিল, প্রবল উত্তেজনার মধ্য দিয়ে তিনি সেটা হটিয়ে দিয়েছেন এবং জনতাকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন। ’

সম্মেলনে উপস্থিত রক্ষণশীলদের ট্রাম্পের প্রতি সমর্থনের তীব্রতা বোঝা যায় তাদের টি-শার্টে নানা লেখা দেখে।

কারো পরনে সমাজতন্ত্রবিরোধী স্লোগান লেখা টি-শার্ট। কেউ আবার পরেছে ‘ওবামাকেয়ার বাতিল করো’ লেখা টি-শার্ট। ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হওয়ায় দেশটিতে নতুন অর্থনৈতিক জাতীয়তাবাদের জন্ম হয়েছে বলেও মনে করে তাদের অনেকে। হোয়াইট হাউসের চিফ স্ট্র্যাটেজিস্ট স্টিভ ব্যানন বলেন, ‘নতুন রাজনৈতিক শৃঙ্খলার জন্ম হয়েছে। ’

টেক্সাসের ডালাস থেকে সম্মেলনে এসেছেন ৬১ বছর বয়সী বৈমানিক স্টিভ হ্যানলি। ট্রাম্পের কর্মকাণ্ডে মুগ্ধ স্টিভ বলেন, ‘ট্রাম্প যেসব কাজ করছেন, তাতে আমরা বিস্ময়াবিভূত। ’ ট্রাম্প প্রশাসনের প্রথম মাসটা ভীষণ গোলযোগের মধ্য দিয়ে গেছে, সেটা স্বীকার করেই ভার্জিনিয়ার ইনস্যুরেন্সকর্মী চার্লস কুইলোট বলেন, ‘বিকল্প কারো চেয়ে তিনি অনেক বেশি ভালো। ’

একসময় ডেমোক্র্যাটঘেঁষা থাকলেও ধীরে ধীরে রক্ষণশীল রিপাবলিকানদের দিকে ঝোঁকেন ট্রাম্প। তিনি সিপিএসিতে সর্বপ্রথম ভাষণ দেন ছয় বছর আগে। রাজনৈতিক শ্রেণি-বৈষম্যের বিরুদ্ধে কথা বলেছিলেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম অর্থনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী চীনের বিরুদ্ধেও তিনি বক্তব্য দিয়েছিলেন। তাঁর এসব বক্তব্য মোটামুটি গ্রহণযোগ্যতা পেলেও আদতে সেই সময় তাঁর কপালে জুটেছিল সম্মেলনে উপস্থিত রক্ষণশীলদের দুয়ো। গত সম্মেলনেও ট্রাম্পকে খুব একটা ভালোভাবে নেয়নি তারা। তবে এখন পরিস্থিতি উল্টো। অনেক রিপাবলিকানের ভিন্নমত সত্ত্বেও এখন তারা ট্রাম্পের প্রতি অনেকখানি ইতিবাচক। লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে সিপিএসিতে যোগ দিতে আসা তেমনই একজন ৪৫ বছর বয়সী এরিক গোলুব। ট্রাম্পের ব্যাপারে তাঁর মনোভাব, ‘তিনি কী বলেন, সেটা নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যথা নেই। আমি দেখি তাঁর কাজ। ’ ট্রাম্পের পূর্বসূরি ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা সম্পর্কে তাঁর মন্তব্য, ‘বারাক ওবামার কথাগুলো ছিল সুন্দর পুষ্পশোভিত। কিন্তু কাজের বেলায় সেগুলো ছিল আবর্জনা। ’

সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য