kalerkantho


দক্ষিণ চীন সাগরে তৈরি ভবন ক্ষেপণাস্ত্র রাখার জন্য?

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের আপত্তি সত্ত্বেও দক্ষিণ চীন সাগরে চীন অবকাঠামো তৈরির কাজ অব্যাহত রেখেছে। এরই মধ্যে তারা কৃত্রিম দ্বীপে প্রায় দুই ডজন অবকাঠামোর কাজ শেষ করে নিয়ে এসেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের দুজন কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়ে বলেছেন, অবকাঠামোগুলো দেখতে ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপণযোগ্য দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র রাখার জন্য ঘরের মতো।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে যুক্তরাষ্ট্রের এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেছেন, ‘দক্ষিণ চীন সাগরে চীন শুধু সাধারণ উদ্দেশ্যে ভবনসদৃশ অবকাঠামো তৈরি করছে তেমনটা মনে হচ্ছে না। অবকাঠামোগুলো ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র রাখার জন্য ব্যবহৃত কাঠামোর মতো। ’ অন্য এক কর্মকর্তা অবকাঠামোর আকারের বর্ণনা দিয়ে বলেন, অবকাঠামোগুলো ৬৬ ফুট দীর্ঘ এবং ৩৩ ফুট উঁচু।

চীনের এই অবকাঠামো তৈরি সম্পর্কে পেন্টাগনের একজন মুখপাত্র বলেন, যুক্তরাষ্ট্র দক্ষিণ চীন সাগরকে সামরিকীকরণ না করার বিষয়ে প্রতিশ্রুতবদ্ধ রয়েছে। সে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সব দেশকে আন্তর্জাতিক আইন মেনে চলার আহ্বান জানাচ্ছে। ওয়াশিংটনের চীনা দূতাবাস এ আহ্বানের বিষয়ে তাত্ক্ষণিকভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি।

এদিকে মঙ্গলবার ফিলিপাইন ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের অস্ত্র মোতায়েনের বিষয়কে ‘অত্যন্ত অস্বস্তিকর’ অভিহিত করেছে। সেই সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনার আহ্বান জানিয়েছে।

দক্ষিণ চীন সাগের চীনের এ ধরনের অবকাঠামো তৈরির বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন কিভাবে জবাব দেবে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ব্রুনেই, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, তাইওয়ান ও ভিয়েতনামের দাবি অগ্রাহ্য করে চীন দক্ষিণ চীন সাগরের প্রায় পুরোটাই নিজেদের দাবি করে চলেছে। এ পথ দিয়ে বিশ্বের এক-তৃতীয়াংশ বাণিজ্য পণ্য পরিবহন করা হয়। ফলে যুক্তরাষ্ট্র এ জলপথের ওপর চীনের একচ্ছত্র আধিপত্য মেনে নিতে পারছে না। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য