kalerkantho


১২০০ ইয়াজিদি শরণার্থী গ্রহণ করবে কানাডা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



১২০০ ইয়াজিদি শরণার্থী গ্রহণ করবে কানাডা

কানাডা সরকার জোর দিয়ে বলেছে, তারা ইরাকে ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিদের হাতে নির্যাতনের শিকার এক হাজার ২০০ ইয়াজিদি শরণার্থীকে গ্রহণ করবে। ইতিমধ্যে ৪০০ জন ইয়াজিদিকে বিমানে করে কানাডা নিয়ে আসা হয়েছে।

আইএসের হাতে ‘গণহত্যার’ সম্মুখীন ইয়াজিদিদের গ্রহণে কানাডার পার্লামেন্টে একটি প্রস্তাব পাসের পর এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির অভিবাসনমন্ত্রী আহমেদ হুসেন।

এদিকে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো মঙ্গলবার পার্লামেন্টে বলেন, ‘আমরা শরণার্থীদের নেওয়া অব্যাহত রাখব। এর অন্যতম কারণ—কানাডা সব সময় একটি উন্মুক্ত দেশ। কানাডীয়রা দেশের অভিবাসীব্যবস্থা, সীমান্তের অখণ্ডতার ওপর বিশ্বাস রাখে। যারা নিরাপত্তা চায়, আমরা তাদের সাহায্য করি। ’ শরণার্থী প্রশ্নে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিমাতাসুলভ আচরণের কারণে প্রতিদিনই যুক্তরাষ্ট্র থেকে সীমান্ত পেরিয়ে কানাডায় শরণার্থী প্রবেশ বাড়ছে। এমন অবস্থায় কানাডার বিরোধী কনজারভেটিভরা শরণার্থীদের প্রতিহত করার দাবি তুললে ট্রুডো তাঁর অবস্থান জানিয়ে দেন।

অভিবাসনমন্ত্রী আহমেদ হুসেন মঙ্গলবার বলেন, ইয়াজিদি শরণার্থীদের নিয়ে আসার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। এরই মধ্যে গত কয়েক মাসে আইএসের হাত থেকে বেঁচে যাওয়া অনেককে কানাডায় পুনর্বাসনের জন্য নিয়ে আসা হয়েছে এবং এ প্রক্রিয়া গত বছরের ২৫ অক্টোবর শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমাদের সরকার চরম নির্যাতনের শিকার এক হাজার ২০০ ইয়াজিদি শরণার্থী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের কানাডায় পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করবে। ’

হুসেন বলেন, ‘কানাডার মূল লক্ষ্য ছিল ঝুঁকিতে থাকা নারী ও কন্যাশিশুদের গ্রহণ করা। তবে অটোয়া এখন জানতে পেরেছে, আইএস উদ্দেশ্যমূলকভাবে ছেলেদের লক্ষ্যবস্তু করেছে। তাই আমরা আইএসের হাত থেকে বেঁচে যাওয়া সব শিশুকে পুনর্বাসনে সাহায্য করছি। ’ তিনি বলেন, শরণার্থীরা বাণিজ্যিক ফ্লাইটে কানাডা আসছে এবং তাদের আনার প্রক্রিয়ায় দুই কোটি ৮০ লাখ কানাডীয় ডলার ব্যয় হতে পারে।

২০১৫ সালের শেষে ক্ষমতায় আসার পর জাস্টিন ট্রুডোর সরকার ৪০ হাজার সিরীয় শরণার্থীকে পুনর্বাসন করেছে। হুসেন বলেন, পুরোপুরি নিরাপত্তাজনিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও ডাক্তারি চেকআপের পর তাদের কানাডায় নিয়ে আসা হচ্ছে।

সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য