kalerkantho


মসুলের একটি গুরুত্বপূর্ণ শহরের দখল নিয়েছে ইরাকি বাহিনী

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিগোষ্ঠীর দখলে থাকা মসুলের পশ্চিমাঞ্চলের কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ শহর আবু সাইফের দখল নিয়েছে ইরাকি সরকারি বাহিনী। গতকাল মঙ্গলবার তারা শহরটিতে ঢোকে। আবু সাইফের দখল নেওয়ার অর্থ হচ্ছে মসুল বিমানবন্দরে যাওয়ার পথটা ইরাকি বাহিনীর জন্য সহজ হয়ে গেল। সেনারা এখন শহরটিকে নিরাপদ করার চেষ্টা করছে। তবে ছোট এই শহরে মাটির নিচে সুড়ঙ্গের জাল থাকায় যথেষ্ট বাধাবিপত্তির মুখোমুখি হওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে।

ইরাকের বিশেষ পুলিশ বাহিনী রাস্তা এবং বাড়ির ছাদ ব্যবহার করে এগিয়ে চলেছে। তাদের হেলিকপ্টার এবং গোলন্দাজ বাহিনী সহযোগিতা দিচ্ছে। আগের রাতে তারা সন্দেহভাজন জঙ্গিদের একটি বাড়ি বিমান হামলায় পুরোপুরি ধ্বংস করে দেয়। এ ঘটনায় সাতজন নিহত হয়।

ইরাকি বাহিনীর সাফল্য অব্যাহত থাকলেও পদে পদে তাদের বাধার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। ক্ষণে ক্ষণে কামান ও মর্টারের শব্দ শোনা যাচ্ছে।

রাস্তার পাশে জঙ্গিদের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে। রাস্তায় জঙ্গিরা বোমা পুঁতে রাখায় ইরাকি বাহিনীর গতি ক্রমেই ধীর হয়ে আসছে। ইরাকি বাহিনী আবু সাইফ শহরে পৌঁছালে বেশ কিছু মানুষ সাদা পতাকা নাড়িয়ে তাদের স্বাগত জানায়। র‌্যাপিড রেসপন্স ফোর্সের ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্বাস আল জুবুরি বলেন, ‘স্বল্প সময়ে এটা আমাদের দারুণ সাফল্য। আমাদের প্রতি বাড়িতেই যুদ্ধ করতে হচ্ছিল। তবে খুবসংখ্যক জঙ্গি বিস্ফোরকের বেল্ট ব্যবহার করেছে। সোমবার বেশ কিছু জঙ্গি মারা পড়েছে। আমরা বেশ কিছু সুড়ঙ্গ আবিষ্কার করেছি, কিছু অস্ত্রও উদ্ধার করেছি। যেভাবে আমরা এগোচ্ছি তাতে মসুলের পশ্চিমাঞ্চল দখলে নিতে হয়তো খুব বেশি সময় দরকার হবে না। ’

পদাতিক ও বিমানবাহিনীর সমর্থন নিয়ে মসুল পুনরুদ্ধারে কয়েক হাজার ইরাকি সেনা অংশ নিচ্ছে। মসুলের পশ্চিমাঞ্চলের রাস্তাঘাট সরু হওয়ায় এ অঞ্চলে অভিযান চালানো কঠিন হবে বলে মনে করছেন সামরিক কর্মকর্তারা। পূর্ব মসুল থেকে পশ্চিম মসুল আকারে ছোট হলেও এ এলাকা অনেক ঘনবসতি। ফলে মসুলে আটকে থাকা সাড়ে ছয় লাখ নাগরিকের ক্ষতির আশঙ্কায় জাতিসংঘ উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। সাধারণ নাগরিকদের সতর্ক থাকার জন্য আগেই লিফলেটের মাধ্যমে সতর্ক করা হয়েছে। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য