kalerkantho


জং-নাম হত্যাকাণ্ডের ভিডিও চিত্র প্রকাশ

বাড়ছে উত্তর কোরিয়া মালয়েশিয়া উত্তেজনা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বাড়ছে উত্তর কোরিয়া মালয়েশিয়া উত্তেজনা

উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সত্ভাই কিম জং নাম হত্যাকাণ্ডের তদন্ত নিয়ে উত্তর কোরিয়া ও মালয়েশিয়ার মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় চলছে, সৃষ্টি হচ্ছে কূটনৈতিক অস্থিরতা। এসবের মধ্যে জং নামের ওপর দুই নারীর হামলার ভিডিও চিত্র ও ছবি বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রচার হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে উত্তেজনা আরো বাড়ছে।

গতকাল সোমবার মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রাজধানী কুয়ালালামপুরে নিযুক্ত উত্তর কোরীয় রাষ্ট্রদূত কাং শোলকে তলব করে। কুয়ালালামপুর ‘শত্রু শক্তিগুলোর’ সঙ্গে আঁতাত করছে—গত শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে শোলের এমন অভিযোগ উত্থাপনে ক্ষুব্ধ মালয়েশীয় সরকার তাঁকে ডেকে পাঠায়। কেবল তাঁকে তলব করাই নয়, উত্তর কোরিয়ায় নিযুক্ত নিজেদের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে পাঠিয়েছে মালয়েশিয়া।

এদিকে শোল পাল্টা জবাবে সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঘটনার সাত দিন পেরিয়ে গেছে। অথচ মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে সুস্পষ্ট কোনো প্রমাণ এখনো নেই। এ অবস্থায় আমরা মালয়েশীয় পুলিশের তদন্তের ওপর আস্থা রাখতে পারছি না। ’

মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘এ ধরনের সমালোচনা একেবারে ভিত্তিহীন মনে করে মালয়েশিয়া সরকার। ’ মালয়েশিয়ার মাটিতে ঘটনা ঘটেছে বলে এর তদন্তের ভারও তাদের ওপর বলে দাবি করে মন্ত্রণালয়।

গত সোমবার কুয়ালালামপুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে হামলার শিকার হন জং নাম।

জাপানি টেলিভিশনে প্রচারিত সিসিটিভি ফুটেজে দুই নারীকে জং-নামের পেছন পেছন আসতে দেখা যায়। তাদের মধ্যে একজন পেছন থেকে জং নামের মুখমণ্ডল আঁকড়ে ধরে কোনো একটা কাপড় চেপে ধরে। এর পরপরই তিনি বিমানবন্দরের কর্মীদের ঘটনার কথা জানালে তাঁরা তাঁকে বিমানবন্দরের ক্লিনিকে নিয়ে যান। মালয়েশীয় সংবাদমাধ্যমে প্রচারিত বিভিন্ন ছবিও এ ফুটেজের সঙ্গে মিলে যায়। কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে ম্যাকাওয়ের ফ্লাইট ধরার অপেক্ষায় থাকা জং নামকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করা হয় বলে পুলিশের ধারণা।

এ হত্যাকাণ্ডের পরপরই এতে উত্তর কোরিয়া জড়িত থাকতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। একই ইঙ্গিত দিচ্ছে সংবাদমাধ্যম সিএনএন। তারা জং নামকে হত্যার পেছনে উত্তর কোরিয়ার জড়িত থাকার সম্ভাব্য কারণও ব্যাখ্যা করেছে। মালয়েশীয় তদন্তে উত্তর কোরীয় সন্দেহভাজনদের নাম আসায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এমন সন্দেহ আরো জোরালো হচ্ছে।

সন্দেহভাজন পাঁচ উত্তর কোরীয়র মধ্যে একজনকে এরই মধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিরা ঘটনার দিন সন্ধ্যায়ই মালয়েশিয়া ছেড়েছে বলে তদন্তকারীরা জানান। তারা সরাসরি পিয়ংইয়ংয়ের ফ্লাইটে না উঠে ইন্দোনেশিয়া, দুবাই ও রাশিয়া হয়ে দেশে ফেরে। এক উত্তর কোরীয় ছাড়াও গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের তালিকায় আছে এক ভিয়েতনামি নারী, এক ইন্দোনেশীয় নারী ও তার মালয়েশীয় প্রেমিক। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য