kalerkantho


ভয় ধরাতে পারেনি আইএস

শাহবাজ কালান্দারের মাজারে আবার ভক্তদের ভিড়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



পাকিস্তানের লাল শাহবাজ কালান্দারের মাজারে জঙ্গি হামলার ২৪ ঘণ্টার মাথায় ভক্তদের ভিড় শুরু হয়ে গেছে। গত বৃহস্পতিবার ইসলামিক স্টেটের (আইএস) হামলায় এ পর্যন্ত প্রায় ৮৮ জন নিহতের তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। পরদিন শুক্রবার সন্ধ্যা নাগাদ সেখানে প্রায় দেড় শ ভক্তের আনাগোনা হয়েছে। এদিকে দেশজুড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর আইএসবিরোধী অভিযান অব্যাহত আছে।

লাল শাহবাজ কালান্দার নামে পরিচিত ত্রয়োদশ শতকের সুফি সাধক সৈয়দ উসমান মারওয়ান্দির মাজারে আইএসের আত্মঘাতী হামলা সত্ত্বেও ভক্তদের আনাগোনা শুরু হতে দেরি হয়নি। মাজারের কেয়ারটেকাররা ইতিমধ্যে শ্বেতপাথরের মেঝে থেকে রক্তের দাগ পরিষ্কার করে ফেলেছে, সরিয়ে ফেলেছে ধ্বংসের অন্যান্য চিহ্ন। তাদের ধামালের (এক ধরনের নাচ) প্রস্তুতিও সম্পন্ন হয়েছে।

আলী ওঠো নামের এক ভক্ত বলেন, ‘এটা লাল শাহবাজ কালান্দার। কোনো সন্ত্রাসী, কোনো রকম সন্ত্রাসী হামলা আমাদের ভয় দেখাতে পারবে না। ধামাল চলবে এবং চলতেই হবে। ’ সন্ত্রাসীদের ভয়ে কিংবা পুলিশের নিরাপত্তা বৃদ্ধির জেরে ভক্তদের মাজারে আসা থামবে না বলেও মন্তব্য করেন অনেকে।

মাজারের কেয়ারটেকারদের একজন হাজা শাহ কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘এটা পুলিশের জায়গা নয়। এটা আমাদের জায়গা। ’

সিন্ধু প্রদেশের শেহওয়ান শরিফের লাল শাহবাজ কালান্দারের মাজারে হামলার পর নিরাপত্তা বাহিনীর সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে অন্তত ১০০ জন নিহত হয়েছে। শুক্রবার সেনাবাহিনীর বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। সন্ত্রাসীদের দেশত্যাগ ঠেকাতে জঙ্গিদের ‘অভয়ারণ্য’ হিসেবে পরিচিত পাকিস্তান-আফগান সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলেও বিবৃতিতে জানানো হয়।

সেনাবাহিনী জানায়, তারা আফগান কর্তৃপক্ষকে ৭৬ সন্ত্রাসীর একটি তালিকা দিয়েছে এবং তালিকাভুক্তদের বিরুদ্ধে তাত্ক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করেছে। এ ছাড়া বিশ্বের অন্যতম সামরিক জোট ন্যাটোর আফগানিস্তানে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর কমান্ডার জেনারেল জন নিকোলসনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন পাকিস্তানি সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। ফোনে তিনি ন্যাটোর কর্মকর্তাকে বলেছেন, ‘সন্ত্রাসীদের এসব কর্মকাণ্ড সত্ত্বেও তাদের ব্যাপারে এমন নিষ্ক্রিয় থাকার মাধ্যমে আমরা বর্তমান নীতির পরীক্ষা দিচ্ছি, যে নীতির কারণে আমরা সীমান্ত পেরোচ্ছি না। ’

পাকিস্তানে গত সোমবার থেকে পরপর চার দিন ছোটবড় বিভিন্ন মাত্রার জঙ্গি হামলা হয়েছে। তবে ২০১৪ সালে পেশোয়ারে সেনা পরিচালিত স্কুলে জঙ্গি হামলায় ১৫৪ জন নিহতের ঘটনার পর গত বৃহস্পতিবারের হামলাটাই ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ। সূত্র : আল-জাজিরা।


মন্তব্য