kalerkantho


ক্ষোভ ঝেড়েই চলেছেন ট্রাম্প

‘সংবাদমাধ্যম আমার নয় আমেরিকানদের শত্রু’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



‘সংবাদমাধ্যম আমার নয় আমেরিকানদের শত্রু’

সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বাক্য বিস্ফোরণ থামছেই না। গত শুক্রবার তিনি টুইটারে পাঁচটি সংবাদমাধ্যমের নাম উল্লেখ করে তাদের ব্যর্থ ও আমেরিকার জনগণের শত্রু অ্যাখ্যা দেন।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর শুক্রবারের এক টুইটে প্রথমে নিউ ইয়র্ক টাইমস, সিএনএন ও এনবিসির নাম উল্লেখ করে এগুলোকে ‘অসুস্থ’ অভিহিত করেন। পরে পোস্টটি মুছে দিয়ে নতুন পোস্টে আরো দুটি সংবাদমাধ্যমের নাম উল্লেখ করে তিনি লেখেন, ‘ভুয়া সংবাদমাধ্যম (ব্যর্থ —নিউ ইয়র্ক টাইমস, —এনবিসিনিউজ, —এবিসি, —সিবিএস, —সিএনএন) আমার শত্রু নয়, আমেরিকার জনগণের শত্রু। ’

এর ঘণ্টাখানেক পরে আরেক টুইটে ট্রাম্প তাঁর গত বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলন সম্পর্কে আমেরিকার বিনোদন ব্যক্তিত্ব ও রক্ষণশীল ঘরানার রাজনৈতিক বিশ্লেষক রাশ লিমবর মন্তব্য তুলে ধরেন। ট্রাম্প লেখেন, ‘আমার দেখা সবচেয়ে ফলপ্রসূ একটা সংবাদ সম্মেলন—রাশ লিমব বলেছেন। অনেকেই তাতে সায় দিয়েছে। যদিও ভুয়া সংবাদমাধ্যম সেটাকে অন্য নামে ডাকছে! অসৎ। ’

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলনেও ট্রাম্প সংবাদমাধ্যমের সততা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, ‘ওয়াশিংটন ডিসির বেশির ভাগ সংবাদমাধ্যমের পাশাপাশি নিউ ইয়র্ক, লস অ্যাঞ্জেলেসের সংবাদমাধ্যগুলোও জনতার জন্য কথা বলে না, বরং বিশেষ স্বার্থে এবং একদম, একদম ভেঙে পড়া ব্যবস্থা থেকে যারা সুবিধা নিচ্ছে, তাদের হয়ে কথা বলে। সংবাদমাধ্যমের অসততা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে আমরা যদি এটা নিয়ে কথা না বলি, তাহলে আমেরিকার জনগণের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর কাজ করা হবে।

মারাত্মক ক্ষতিকর। কী ঘটনা ঘটছে, সেটা নিয়ে আমাদের কথা বলতে হবে। কারণ সংবাদমাধ্যম সত্যিই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। তাদের অসততার মাত্রা সীমা ছাড়িয়ে গেছে। ’

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারের সময় থেকেই ট্রাম্পের কথা ও কর্মকাণ্ড নিয়ে সংবাদমাধ্যমগুলোতে তোলপাড় চলছে। নির্বাচনে জিতে তিনি প্রেসিডেন্ট পদে বসার পরও তাঁর ওপর সংবাদমাধ্যমের তীক্ষ দৃষ্টি ও খবর প্রকাশে বিরাম নেই। মাত্র এক মাসের মধ্যে তাঁর নতুন প্রশাসনের ওপর দিয়ে নানা ঝড় গেছে। তাঁর অভিবাসনবিরোধী নির্বাহী আদেশের ওপর আদালতের স্থগিতাদেশ, রুশ কূটনীতিকের সঙ্গে ব্যক্তিগত যোগাযোগের খবর ফাঁস হওয়ার জেরে তাঁর নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদত্যাগ, শ্রমমন্ত্রী হিসেবে তাঁর মনোনীত অ্যান্ড্রু পুডজারের মনোনয়ন প্রত্যাহার—প্রতিটি ক্ষেত্রেই সংবাদমাধ্যমের কড়া নজর ছিল। ট্রাম্পের অভিযোগ, সাংবাদিকরা তাঁর ব্যর্থতা নিয়ে বাড়াবাড়ি করছেন; কিন্তু সফলতার প্রতি যথেষ্ট নজর দিচ্ছেন না। এসব ঘটনা-অঘটনের পরিপ্রেক্ষিতে ট্রাম্পের প্রচারবিষয়ক ওয়েবসাইট এবং রিপাবলিকান পার্টি বৃহস্পতিবার জনতার উদ্দেশে প্রশ্ন করেছে, ‘রিপাবলিকানদের উপস্থাপনের ক্ষেত্রে সংবাদমাধ্যমগুলো কোন কোন ইস্যুতে সবচেয়ে বাজে ভূমিকা রেখেছে?’ ‘মূল ধারার গণমাধ্যমের দায় বিষয়ক জরিপ’ শিরোনামের এ অনলাইন কর্মসূচিতে আরো জানতে চাওয়া হয়েছে, গণমাধ্যমের দায়িত্ববোধ বজায় রাখার জন্য রিপাবলিকানদের আরো সময় ও সম্পদ ব্যয় করা উচিত কি না। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য