kalerkantho


আফগানিস্তানে আরো মার্কিন সেনা মোতায়েনের প্রস্তাব অনুমোদন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



আফগানিস্তানে অতিরিক্ত মার্কিন সেনা মোতায়েনের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কাবুল সরকার। আফগানিস্তানে জঙ্গিগোষ্ঠী তালেবানের পুনরুত্থান ঠেকাতে সম্প্রতি দেশটিতে নিয়োজিত মার্কিন বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল জন নিকোলসন আরো কয়েক হাজার মার্কিন সেনা মোতায়েনের প্রস্তাব দেন। মার্কিন কংগ্রেসে দেওয়া ওই প্রস্তাবে তিনি একই সঙ্গে তালেবানকে উসকানি দেওয়ার জন্য রাশিয়াকে অভিযুক্ত করেন।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো জোট গত ১৬ বছর ধরে আফগানিস্তানে সন্ত্রাসবিরোধী লড়াই চালিয়ে আসছে। এরই মধ্যে এ লড়াই যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে অন্যতম দীর্ঘ লড়াই হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। এর পরও আফগানিস্তানে কোনো স্থায়ী সাফল্যের দেখা পায়নি দেশটি। নিকোলসন কংগ্রেসকে বলেন, ‘আমার বিশ্বাস, আমরা এখন অচলাবস্থায় রয়েছি। ’

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির অতিরিক্ত সেনা মোতায়েনের ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবারও তাঁরা এ ব্যাপারে কথা বলেছেন। দুই নেতার সর্বশেষ আলোচনা সম্পর্কে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, ‘দুই নেতার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক যেমন—নিরাপত্তা, সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমে সহায়তা এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নে সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। ’

আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র দাওলাত ওয়াজিরি বলেন, ‘আমরা আফগান বাহিনীকে কার্যকরী প্রশিক্ষণ ও উপদেশ প্রদানের লক্ষ্যে আরো কয়েক হাজার সেনা মোতায়েনের এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানাই।

ট্রাম্পের মুখপাত্র শন স্পাইসার বলেছেন, নিকোলসনের চাহিদামতো সেনা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে ট্রাম্প প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিসের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। স্পাইসার আরো বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, জেনারেল ও মন্ত্রীর পরামর্শ মোতাবেক প্রেসিডেন্ট কাজ করবেন। ’

আফগানিস্তানে বর্তমানে ন্যাটোর ১৩ হাজার ৩০০ সেনা রয়েছে। তাদের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি যুক্তরাষ্ট্রের। আফগান সেনাবাহিনীর সঙ্গে যৌথভাবে তারা তালেবান এবং অন্য ইসলামী জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে।

মার্কিন কর্মকর্তাদের মতে, আফগান সেনাদের প্রশিক্ষণ, পরামর্শ এবং লড়াইয়ে সহযোগিতার জন্য নিকোলসন অতিরিক্ত সেনা চেয়েছেন। লড়াইয়ের মাঠে সাধারণ আফগান সেনারা শত্রুদের মুখোমুখি হয়ে থাকে। বেশির ভাগ মৃত্যুর ঘটনাও ঘটে আফগান সেনাদেরই।

এদিকে আফগানিস্তানে মার্কিন সেনা বৃদ্ধির ফলে কোনো সুফল আসবে না বলে মনে করছেন কাবুলভিত্তিক বিশ্লেষক গুল ওয়াসেক। তিনি বলেন, ‘প্রায় ১৬ বছর যুদ্ধ চলেছে, ব্যয় হয়েছে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার; কিন্তু কোনো শান্তি আসেনি। যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানে আসেনি স্থিতি। যেখানে এক লাখ সেনার উপস্থিতিতেও কোনো শান্তি আসেনি, সেখানে মাত্র কয়েক হাজার সেনা বৃদ্ধির ফলে কিভাবে শান্তি আসবে?’ সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য