kalerkantho


পুতিনকে শ্রদ্ধা জানিয়ে তোপের মুখে ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



পুতিনকে শ্রদ্ধা জানিয়ে তোপের মুখে ট্রাম্প

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ জানিয়ে তোপের মুখে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ডেমোক্রেটিকের পাশাপাশি নিজ দল রিপাবলিকানেও ব্যাপক সমালোচনা চলছে তাঁকে নিয়ে। ট্রাম্পের পুতিনপ্রীতিকে প্রচণ্ড বিরক্তিকর বলেও মন্তব্য করেছে অনেকে।

গত রবিবার ফক্স নিউজে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে ট্রাম্প বলেন, ‘আমি পুতিনকে শ্রদ্ধা করি। আমি আরো অনেককে শ্রদ্ধা করি। তার মানে এই নয় যে, আমি পুরোপুরি তাদের অনুসরণ করি। ’ তিনি বলেন, ‘রাশিয়া যদি আইএস কিংবা অন্যান্য জঙ্গিগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের সহায়তা করে, তবে বিষয়টি অবশ্যই ইতিবাচকভাবে নিতে হবে। ’

সাক্ষাত্কারে উপস্থাপক ও’রেইলি বলেন, ‘পুতিন তো একজন খুনি!’ জবাবে ট্রাম্প বলেন, ‘চারপাশে অনেক খুনি আছে। আমরা নিজ দেশেও অনেক খুনি দেখেছি। আপনি কি মনে করেন, যুক্তরাষ্ট্র নিষ্পাপ?’

মূলত এসব মন্তব্যের কারণেই দল ও দলের বাইরে তোপের মুখে পড়েছেন ট্রাম্প। রিপাবলিকান ও সিনেটের নেতা মিচ ম্যাককনেল বলেন, ‘রাশিয়া যে পথে হাঁটে, আমি মনে করি না যে যুক্তরাষ্ট্রও একই পথে হাঁটে।

পুতিন একসময় কেজিবির (সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা) এজেন্ট ছিলেন। তিনি একজন খুনি। গ্রহণযোগ্য নির্বাচন বলতে যা বোঝায়, পুতিন তেমন কোনো নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসেননি। ’

প্রায় একই ধরনের সমালোচনা করেছেন সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার উপদেষ্টা মাইকেল ম্যাকফল। রাশিয়ায় নিযুক্ত সাবেক এই মার্কিন রাষ্ট্রদূত এক টুইটার বার্তায় বলেন, ‘ট্রাম্প যে নৈতিক জায়গা থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়াকে এক কাতারে ফেলছেন, তা খুবই বিরক্তিকর এবং অসত্য। ’

পুতিন থেকে দূরে থাকতে মূলধারার রিপাবলিকানরা প্রতিনিয়তও ট্রাম্পকে আহ্বান জানিয়ে আসছে। কিন্তু ধনকুবের থেকে প্রেসিডেন্ট হওয়া ট্রাম্প তা আমলে নেননি। নির্বাচনী প্রচারণা থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত তিনি পুতিনের সমালোচনা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। ট্রাম্পের যুক্তি, ক্রেমলিনের সঙ্গে সম্পর্ক গড়লে তা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য মঙ্গল হবে।

পুতিনপ্রীতির পাশাপাশি ট্রাম্পের মুখে ন্যাটোর সমালোচনাও ভালোভাবে নেয়নি ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানরা। অনেকের আশঙ্কা, আন্তর্জাতিক সামরিক জোট গড়তে ইউরোপের মিত্র দেশগুলোকে টপকে ট্রাম্প রাশিয়ার সঙ্গে হাত মেলাবেন।

ইউক্রেন ইস্যুতে ট্রাম্পের অবস্থান নিয়ে অবাক হয়েছে অনেকে। গত শনিবার দেশটির নেতা পেত্রো পোরোশেংকোর সঙ্গে ট্রাম্পের ফোনালাপ হয়। পরে হোয়াইট হাউস জানায়, ‘দুই নেতার মধ্যে রাশিয়ার সঙ্গে ইউক্রেনের দীর্ঘদিনের সংঘাত নিয়ে কথা হয়েছে। ’

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপের বেশির ভাগ দেশ বিষয়টিকে ‘রাশিয়ার সঙ্গে ইউক্রেনের দীর্ঘদিনের বিরোধ’ হিসেবে দেখে না। তাদের দৃষ্টিতে, কোনো বিরোধ ছাড়াই ২০১৪ সালের মার্চে ইউক্রেনের কাছ থেকে ক্রিমিয়া অঞ্চল ছিনিয়ে নেয় রাশিয়া। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য