kalerkantho


মায়ের কোলে ফিরল শিশু ইফতিকার

ভারতকে ধন্যবাদ জানাল পাকিস্তান

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মায়ের কোলে ফিরল শিশু ইফতিকার

শিশুটির নাম ইফতিকার আহমেদ। তার মা রোহিনা কায়ানি পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বাসিন্দা।

আর বাবা গুলজার আহমেদ ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মুর বাসিন্দা। গত বছর একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার নাম করে ইফতিকারকে নিয়ে ভারতে যান গুলজার। কিন্তু তারা পাকিস্তানে না ফেরায় ছেলেকে ফিরে পেতে দিল্লিতে পাকিস্তানি হাইকমিশনের সহায়তায় ভারতীয় আদালতে মামলা করেন রোহিনা। দীর্ঘ আইনি জটিলতার পর অবশেষে ১১ মাস পর পাঁচ বছর বয়সী ইফতিকারকে মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। শনিবার ভারত-পাকিস্তানের ওয়াগা সীমান্ত পথে তাকে পাকিস্তানি কর্মকর্তাদের হাতে তুলে দেন ভারতীয় কর্মকর্তারা।

ছেলেকে ফিরে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা মা ধন্যবাদ জানিয়েছেন দুই দেশের প্রশাসনকে। পাকিস্তান কর্তৃপক্ষও ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছে বিশেষ ধন্যবাদ। ভারতে নিযুক্ত পাকিস্তানি হাইকমিশনার আবদুল বাসিত এক টুইটার বার্তায় বলেন, ‘এই মানবিক ঘটনাটিতে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ’

জানা যায়, ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের গান্দেরবাল গ্রামে গুলজারের জন্ম ও বেড়ে ওঠা।

১৯৯০ সালে তিনি পাকিস্তাননিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে চলে যান। ওই সময় ভারতীয় শাসনের বিরুদ্ধে কাশ্মীরিদের বিদ্রোহ চরম আকার ধারণ করেছিল। অভিযোগ রয়েছে, সামরিক প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যেই গুলজার পাকিস্তাননিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে পাড়ি জমিয়েছিলেন।

২০১৬ সালের মার্চে গুলজারকে গ্রেপ্তার করে ভারতীয় পুলিশ। কিন্তু বিপত্তি বাধে তাঁর সঙ্গে থাকা শিশুসন্তান ইফতিকারকে নিয়ে। তাকেও বাবার সঙ্গে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়। বিষয়টি নিয়ে ওই সময় ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বিতর্ক শুরু হয়। পরে গুলজারের জামিন হয় এবং আদালত ইফতিকারকে তার মায়ের কাছে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ দিলে ভারত ও পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে উদ্যোগী হয়।

গত বছর গুলজারের বিরুদ্ধে ছেলেকে ‘অপহরণের’ অভিযোগ করেছিলেন রোহিনা। তাতে বলা হয়, ইফতিকার তাঁদের ‘দত্তক’ ছেলে। ২০১৬ সালে গুলজার খাইবার পাখতুনখোওয়ায় এক আত্মীয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানের কথা বলে ইফতেখারকে নিয়ে যান।  

তিন দিন ধরে ফোনে না পেয়ে গুলজারের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে রোহানি বুঝতে পারেন, তাঁর স্বামী তাঁকে না জানিয়ে ছেলেকে দুবাই হয়ে ভারতে নিয়ে গেছেন; এরপরই থানায় অভিযোগ করেন তিনি।

শনিবার ইফতিকারকে ফিরে পাওয়ার ঘটনাকে ‘অলৌকিক’ অভিহিত করে উচ্ছ্বসিত রোহিনা বলেন, ‘সন্তানকে ফিরে পাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়েছিলাম। আজ আমি দারুণ খুশি। আমাকে সাহায্য করার জন্য পাকিস্তান ও ভারত সরকারকে ধন্যবাদ জানাই। ’

এদিকে ভারত সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে দিল্লিতে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার আবদুল বাসিত এক টুইটার বার্তায় বলেছেন, ‘এই মানবিক ঘটনাটিতে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ’ সূত্র : এনডিটিভি, এএফপি।


মন্তব্য