kalerkantho


‘সেনকাকু’ দ্বীপপুঞ্জ

চীন-জাপানের পুরনো বিরোধ উসকে দিল যুক্তরাষ্ট্র

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



চীন-জাপানের পুরনো বিরোধ উসকে দিল যুক্তরাষ্ট্র

একটি দ্বীপপুঞ্জের মালিকানা নিয়ে জাপান ও চীনের মধ্যে যে বিরোধ রয়েছে, তা নতুন করে উসকে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ট্রাম্প প্রশাসনের নবনিযুক্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস বলেছেন, ওই দ্বীপপুঞ্জের মালিকানা জাপানের এবং যুক্তরাষ্ট্র সেই মালিকানা রক্ষা করতে বাধ্য।

এদিকে ম্যাটিসের এ মন্তব্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে পেইচিং। তারা বলেছে, ওয়াশিংটন এশিয়া অঞ্চলের স্থিতিশীলতাকে হুমকির মুখে ফেলেছে।

দ্বীপপুঞ্জটির অবস্থান পূর্ব চীন সাগরে। জাপানে সেটিকে বলা হয় ‘সেনকাকু’। আর চীনে পরিচিত ‘দায়াউস’ নামে। দীর্ঘদিন ধরেই এর মালিকানা নিয়ে দুই দেশের মধ্যে বিরোধ চলছে। এমনকি আধিপত্য ধরে রাখতে উভয় দেশই ওই অঞ্চলে প্রায়ই টহল কার্যক্রম চালায়।

পূর্ব এশিয়া সফরের শেষ দিনে গতকাল শনিবার টোকিওতে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন ম্যাটিস। বৈঠকের পর এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, ওয়াশিংটন ও টোকিওর মধ্যে যে সামরিক চুক্তি আছে, সেনকাকু এর আওতায় পড়ে।

‘আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, মার্কিন প্রশাসনের কাছে ওই দ্বীপপুঞ্জের মালিক জাপান। আর ওই মালিকানা রক্ষায় আমরা অবশ্যই চুক্তির ৫ নম্বর ধারা মানতে বাধ্য। ’ চুক্তির ৫ নম্বর ধারা অনুযায়ী, জাপানের মালিকানাধীন যেকোনো ভূখণ্ডকে বহিঃশক্তির হামলা থেকে যুক্তরাষ্ট্র সুরক্ষা দেবে। সদ্য বিদায়ী ওবামা প্রশাসনের দৃষ্টিভঙ্গিও ম্যাটিসের মতোই ছিল। তবে তাঁর এ মন্তব্যের আলাদা বিশেষত্ব আছে। কারণ নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্প বলেছিলেন, তিনি ক্ষমতায় গেলে জাপানের সঙ্গে সামরিক চুক্তি থেকে সরে দাঁড়াবেন। সেই হিসাবে ম্যাটিসের প্রতিশ্রুতির কারণে জাপান এখন অনেকটা স্বস্তিবোধ করবে।

এদিকে ম্যাটিসের বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছে পেইচিং। গতকাল দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লু কাং বলেন, ‘আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে উল্টাপাল্টা মন্তব্য না করে দায়িত্বশীল আচরণ করার আহ্বান জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে আহ্বান জানাচ্ছি এশিয়া অঞ্চলের স্থিতিশীলতা রক্ষার স্বার্থে তারা যেন ‘দায়াউস’ ইস্যুকে জটিল করে না ফেলে। ’ সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য