kalerkantho


লোকচক্ষুর আড়ালেই থাকবেন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া?

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



লোকচক্ষুর আড়ালেই থাকবেন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া?

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিষেকের দুই সপ্তাহ পেরিয়ে গেছে। কিন্তু ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে ওঠা তো দূরে থাক, এখনো নিউ ইয়র্কের পাটই চুকাননি।

অভিষেক অনুষ্ঠানের পর থেকে তাঁকে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কোনো আনুষ্ঠানিকতায়ও দেখা যাচ্ছে না। ফলে প্রশ্ন জোরালো হচ্ছে, ফ্যাশন জগত থেকে আসা এ ফার্স্ট লেডির ভূমিকা ঠিক কেমন হবে?

জনসমক্ষে মেলানিয়ার দেখা না পেয়ে সংবাদমাধ্যমগুলোও উঠেপড়ে লেগেছে। সিএনএন ও ওয়াশিংটন পোস্ট ‘কোথায় মেলানিয়া?’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করেছে। আরেকটু বাড়িয়ে তারকা জগত নিয়ে প্রকাশিত সাময়িকী ইউএস উইকলি শিরোনাম দিয়েছে ‘আলাদা বসবাস’। মেলানিয়ার পক্ষ থেকে তাঁর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কোনো ঘোষণা না এলেও জানা গেছে, স্কুলপড়ুয়া ছেলে ব্যারনের চলতি শিক্ষাবর্ষ শেষ করাটাই তাঁর এখনকার পরিকল্পনা। অর্থাৎ আগামী অন্তত কয়েক মাস তিনি ছেলেকে নিয়ে নিউ ইয়র্কেই থাকছেন।

ফার্স্ট লেডি হিসেবে ৪৬ বছর বয়সী মেলানিয়া ঠিক কেমন হবেন, সে প্রশ্ন আরো জোরালো হয়েছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ট্রাম্পের পাশে ফার্স্ট লেডির পরিবর্তে বড় মেয়ে ইভানকা ট্রাম্পের উপস্থিতিতে। মেলানিয়া এখনো নিউ ইয়র্কের পাততাড়ি গোটাতে না পারলেও ইভানকা ও স্বামী জেয়ার্ড কুশনার হোয়াইট হাউসের খুব কাছেই বসবাস শুরু করেছেন। এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও মেলানিয়া এখন একদম নীরব।

ফার্স্ট লেডি হিসেবে নিজের কর্মকর্তা নিয়োগেও তাঁর তেমন অগ্রগতি নেই। আপাতত মেলানিয়ার নিভৃতচারিতার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে কানেকটিকাট কলেজের সরকারবিষয়ক অধ্যাপক ম্যারিঅ্যান বোরেলি হাল আমলের সাবেক ফার্স্ট লেডিদের প্রবণতা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘প্রেসিডেন্টের প্রথম ১০০ দিনের এজেন্ডার পরিপূরক হিসেবে এবং সেগুলোর ওপর জোর দিয়ে ফার্স্ট লেডি সাধারণত মার্চ কিংবা এপ্রিলে তাঁদের নীতিনির্ধারণ করেন। ’

বিশ্লেষকদের কেউ কেউ মনে করছেন, জনপ্রিয়তায় পিছিয়ে থাকার কারণে মেলানিয়া হয়তো লোকচক্ষুর আড়ালে থাকছেন। নির্বাচনী প্রচারকালে ট্রাম্পের কথা আর কর্মকাণ্ড, তদুপরি ওই সময় মেলানিয়ার এক বক্তৃতায় তত্কালীন ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামার উক্তি নকল করার অভিযোগে ট্রাম্প-মেলানিয়া উভয়ই প্রচণ্ড সমালোচনার শিকার হন। নির্বাচনপূর্ব পরিস্থিতির জেরে এখন জনসমক্ষে না আসাটা মেলানিয়ার জন্য ইতিবাচক হবে না বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। অধ্যাপক বোরেলি বলেন, ‘আমি মনে করি, হোয়াইট হাউসে প্রবেশকালে ফার্স্ট লেডিদের প্রতি মানুষের সমর্থন ও সন্দেহ দুটিই মিশে থাকে। যেহেতু তাঁদের জনতার সামনে আসতে হয়, তাই হোয়াইট হাউসে প্রবেশের পর তাঁদের উচিত, সমর্থনটুকু কিভাবে কাজে লাগাতে হয় তা শিখে নেওয়া এবং সন্দেহ নিরসনের উপায় রপ্ত করা। ’ তবে আধুনিককালের সাবেক ফার্স্ট লেডিদের মতো সপ্রতিভ ও নিখুঁত হওয়ার চেষ্টা না করে মেলানিয়া হয়তো লোকচক্ষুর আড়ালে থেকে যাবেন, এমন ধারণাও করছেন কেউ কেউ। এর ভবিষ্যৎ কী হতে পারে, সে সম্পর্কে ওহাইয়ো ইউনিভার্সিটির ইতিহাসের অধ্যাপক ক্যাথেরিন বলেন, ‘এতে হয়তো আগামী দিনে নারীদের প্রতি প্রত্যাশা কমবে। নিজেকে নিখুঁত আমেরিকান স্ত্রী ও আদর্শ মা হতে হবে, এমন চাপ সে হয়তো অনুভব করবেন না। ’ তার পরও, যত কারণই থাক না কেন, ফার্স্ট লেডিদের হোয়াইট হাউসে প্রবেশে এত দেরি করাটা হাল আমলের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয় বলে মনে করেন তিনি। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য