kalerkantho


ডেমোক্র্যাটদের বাধায় পিছিয়ে পড়ছেন ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ডেমোক্র্যাটদের বাধায় পিছিয়ে পড়ছেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের নতুন মন্ত্রিসভা গঠনের পথে পার্লামেন্টের ডেমোক্র্যাট রাজনীতিকদের বাধায় ভীষণ ক্ষুব্ধ রিপাবলিকান সিনেটর জন করনিন। কংগ্রেসের উচ্চকক্ষের এই সদস্য গত বৃহস্পতিবার বাকি সিনেটরদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘আমি আশা করছি, সিনেটের ডেমোক্র্যাটরা শিগগির আমাদের সঙ্গে কাজ শুরু করবেন, আমাদের বিরুদ্ধে নয়। ’

নতুন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দায়িত্ব গ্রহণের পর ইতিমধ্যে দুই সপ্তাহ পেরিয়ে গেছে। অথচ মন্ত্রিসভা গঠনের জন্য তাঁর মনোনীত ১২ ব্যক্তির মধ্যে মাত্র চারজনের নাম চূড়ান্ত হয়েছে। বাকিদের অনুমোদন এখনো আটকে আছে সংশ্লিষ্ট সিনেট কমিটিতে। অথচ তাঁর দুজন পূর্বসূরি ডেমোক্র্যাট বারাক ওবামা ও রিপাবলিকান জর্জ ডাব্লিউ বুশ ক্ষমতা গ্রহণের দুই সপ্তাহের মধ্যে মন্ত্রিসভা গঠনের কাজ শেষ করতে পেরেছিলেন।

এ বছরের ভিন্নতা সম্পর্কে ডেমোক্র্যাট সিনেটর ক্রিস কুনস বলেন, ‘সময়টা স্বাভাবিক নয়। এই প্রেসিডেন্ট গতানুগতিক নন। আমরা একটা কঠিন অবস্থায় আছি। ’ সিনেটের আরেক ডেমোক্র্যাট নেতা চাক শুমার বলেন, ‘ব্যাংকার আর ধনকুবের দিয়ে ভরা এ রকম মন্ত্রিসভা এর আগে কখনো আমি দেখিনি। এঁরা প্রচণ্ড স্বার্থসংঘাতে জড়িয়ে আছে এবং যেসব বিষয় তাঁরা দেখভাল করবেন, সেসব ক্ষেত্রে তাঁদের অভিজ্ঞতা কিংবা দক্ষতা খুব সামান্য।

ট্রাম্পের মনোনীত প্রার্থীদের পক্ষে ভোট দিতে নারাজ ডেমোক্র্যাটরা কমিটি ভোটে অনুপস্থিত থেকে, নির্বাচন প্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি করে এবং উত্তপ্ত তর্কবিতর্কের মাধ্যমে রাস্তা আটকানোর চেষ্টা করছেন। বিপরীতে রিপাবলিকানরা পথ পরিষ্কার করার জন্য কমিটি ভোটের নীতিমালাই পাল্টে ফেলেছেন। ডেমোক্র্যাটদের বাধাবিঘ্ন সম্পর্কে রিপাবলিকান নেতা করনিন বলেছেন, ‘তাঁরা এর (মন্ত্রিসভা গঠন প্রক্রিয়ার) গতি কমাতে পারবেন, কিন্তু থামাতে পারবেন না। ’

কেবল মন্ত্রিসভা গঠন নিয়ে নয়, অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে সুপ্রিম কোর্টের এক শূন্য পদে বিচারক নেইল গরসাশের নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়েও। গত বছর শূন্য হওয়া এ পদে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার মনোনীত ব্যক্তির নিয়োগ রিপাবলিকানরা আটকে দেয়। এবার ডেমোক্র্যাটরা প্রতিশোধের পথে হাঁটবে কি না, সে সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি। ডেমোক্র্যাট সিনেটর রিচার্ড ব্লুমেনথাল অবশ্য বলেছেন, ‘আমি কিন্তু ইটের বদলে পাটকেল ছুড়ব না। ’

বিশ্লেষকদের মতে, স্রেফ প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য কোনো যোগ্য ব্যক্তির নিয়োগ আটকে দেওয়ার আগে ডেমোক্র্যাটদের ভাবা উচিত। কারণ ২০১৮ সালে ১০ জন ডেমোক্র্যাট সিনেটরকে পুনর্নির্বাচনে অংশ নিতে হবে। তাঁরা ওই সব আসন থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন, যেসব আসনে এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয় পেয়েছেন ট্রাম্প। ফলে আসনগুলো ধরে রাখার কৌশল ডেমোক্র্যাটদের মাথায় রাখতে হচ্ছে। অন্যদিকে গেল সপ্তাহে সুপ্রিম কোর্টের সামনে জড়ো হওয়া ট্রাম্পবিরোধী জনতার ‘প্রতিরোধ করুন’ প্ল্যাকার্ডও তাঁরা উপেক্ষা করতে পারছেন না।  

সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য