kalerkantho


পশ্চিম তীরে আরো তিন হাজার বাড়ি নির্মাণের ঘোষণা ইসরায়েলের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



অধিকৃত পশ্চিম তীরে আরো তিন হাজার নতুন বাড়ি বানানোর পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করেছে ইসরায়েল। ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় গত মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, আবাসিক এলাকার চাহিদা মেটাতেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর এ নিয়ে ফিলিস্তিন ভূখণ্ডে তৃতীয়বার নতুন বসতি নির্মাণের ঘোষণা দিল ইসরায়েল।

এর আগে পশ্চিম তীরের আমোনা চৌকি এলাকার ৩৩০ জন বসতি স্থাপনকারীকে ৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে উচ্ছেদের নির্দেশ দিয়েছিলেন ইসরায়েলি সুপ্রিম কোর্ট। এসব বসতি স্থাপনকারী ফিলিস্তিনিদের ব্যক্তিগত মালিকানাধীন ভূমিতে অবৈধভাবে বসতি নির্মাণ করেছে বলে রুল জারি করেন আদালত। ওই সব বসতি স্থাপনকারী উচ্ছেদ না হতেই মঙ্গলবার মধ্যরাতে নতুন বসতি নির্মাণের ঘোষণাটি এলো।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী আভিগদর লিবারম্যান স্বাক্ষরিত এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, নতুন করে অতিরিক্ত তিন হাজার বাড়ি নির্মাণ করবে ইসরায়েল। লিবারম্যান জানিয়েছেন, নতুন তিন হাজার বাড়ির মধ্যে দুই হাজার এখনই নির্মাণ করা হবে। আর বাকি এক হাজার বাড়ি পরিকল্পনামাফিক বিভিন্ন স্তরে নির্মাণ করা হবে।

ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন ওই বসতি নির্মাণের সমালোচনা করেছে।

আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনে ট্রাম্পের সঙ্গে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বৈঠকের কথা রয়েছে।

ট্রাম্পের শীর্ষ মুখপাত্র জানিয়েছেন, দুই নেতার ওই বৈঠকে অধিকৃত এলাকায় বসতি নির্মাণ নিয়ে আলোচনা হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের সদ্য বিদায় নেওয়া প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ফিলিস্তিন ভূখণ্ডে ইসরায়েলের বসতি নির্মাণের বিষয়ে এতটা নরম ছিলেন না যতটা ট্রাম্পের এই কয়েক দিনের শাসনকালেই দেখা যাচ্ছে। ইসরায়েলের নতুন বসতি নির্মাণ পরিকল্পনাগুলোর বিষয়ে নীরব থেকে হোয়াইট হাউস বুঝিয়ে দিয়েছে তারা এ বিষয়ে ওবামা প্রশাসনের নীতি থেকে সরে এসেছে। ওবামার সহযোগীরা নিয়মিতভাবে ইসরায়েলের বসতি নির্মাণ পরিকল্পনার সমালোচনা করতেন।

এক সপ্তাহ আগেই অধিকৃত পশ্চিম তীরে আড়াই হাজার নতুন বাড়ি নির্মাণের ঘোষণা দেয় ইসরায়েল। এর দুই দিন আগে অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমে ৫৬০টি নতুন বাড়ি নির্মাণের বিষয়টি অনুমোদন করে দেশটির কর্তৃপক্ষ। সূত্র : রয়টার্স।


মন্তব্য