kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ট্রাম্পের কথা

‘হিলারিকে জেতাতেই চলছে মসুল যুদ্ধ’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



‘হিলারিকে জেতাতেই চলছে মসুল যুদ্ধ’

হিলারি ক্লিনটকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জেতানোর জন্যই ইরাকের মসুলে হামলা চালানো হচ্ছে—যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আরেক প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প সর্বশেষ প্রেসিডেনশিয়াল বিতর্কে এ কথা বলেছেন।

মসুলকে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) দখলমুক্ত করতে গত সোমবার থেকে ইরাকের সেনাবাহিনী ও কুর্দি পেশমেরগা বাহিনী অভিযান শুরু করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের বিমানবাহিনী ও উপদেষ্টারা এ বাহিনীর হয়ে কাজ করছেন। আইএস হটানোর এ যুদ্ধকে ট্রাম্প বলছেন, হিলারিকে জেতানোর যুদ্ধ। ট্রাম্পের দাবি, ‘তারা (মসুলগামী আইএসবিরোধী বাহিনী) এ কাজ করছে, কারণ তিনি (হিলারি) প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়ছেন। তারা তাঁকে দৃঢ়চেতা হিসেবে উপস্থাপন করতে চায়। নির্বাচনে জেতার জন্য তিনি ইতিবাচক ভাবমূর্তি দেখাতে চান। এ জন্য তারা যুদ্ধ করছে। ’

প্রতিদ্বন্দ্বীর এমন মন্তব্যে হিলারির জবাব, ‘নির্বাচনে আমাকে সাহায্য করার জন্য ইরাক সরকার, আমাদের মিত্ররা এবং অন্য সবাই মসুলে হামলা চালাচ্ছে, তাঁর এ রকম মনে হওয়ায় আমি বিস্মিত। ডোনাল্ড এভাবেই চিন্তা করেন। আপনারা তো জানেনই, উনি সব সময় কোনো না কোনো ষড়যন্ত্র খোঁজেন। ’

সিরিয়ার আলেপ্পো শহরে সরকার ও তাদের মিত্র রাশিয়ার অব্যাহত বিমান হামলায় ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ ও হতাহতের দিকে সঞ্চালক ট্রাম্পের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘ভুল সিদ্ধান্তের কারণে তারা (আলেপ্পোবাসী) হত্যাকাণ্ডের শিকার হচ্ছে। ’ সাধারণ মানুষের হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে রাশিয়ার দায়দায়িত্ব নিয়ে ট্রাম্পকে প্রশ্ন করা হলে তিনি রাশিয়ার প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান এবং বলেন, ‘আলেপ্পো একটা বিপর্যয়। এর অনেকটাই ঘটেছে হিলারি ক্লিনটনের কারণে। ’

সিরিয়া প্রসঙ্গে হিলারি বলেন, ‘আমি মনে করি নো ফ্লাই জোন মানুষের জীবন রক্ষা করতে পারে এবং যুদ্ধে দ্রুত সমাপ্তি টানতে পারে। ’ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে উত্তপ্ত সম্পর্কের মধ্যে কী করে রাশিয়ার সরকার ও রুশ মিত্রদের সঙ্গে নো ফ্লাই জোনের ব্যাপারে ঐকমত্য প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব, এ ব্যাপারে হিলারি বলেন, ‘এর জন্য অনেক আলোচনার দরকার হবে এবং ভূভাগে নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠা করাটাই আমাদের উদ্দেশ্য, সেটা সিরীয় ও রুশদের কাছে স্পষ্ট করতে হবে। ’ কিন্তু কাজটা এত সহজ হবে না বলে মনে করেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ‘তাঁর (হিলারি) ও ওবামার চেয়ে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ অনেক বেশি কঠিন মনোভাবাপন্ন এবং অনেক বেশি বুদ্ধিমান। ’ আসাদ সম্পর্কে ট্রাম্প আরো বলেন, ‘দুই-তিন বছর আগে সবাই ভেবেছে, তিনি ক্ষমতা হারাচ্ছেন। তিনি রাশিয়ার সঙ্গে জোট বেঁধেছেন। তিনি ইরানের সঙ্গেও জোট বেঁধেছেন, যাদের আমরাই ক্ষমতাবান বানিয়েছি। ’

সূত্র : এএফপি, সিএনএন।

 


মন্তব্য