kalerkantho


মিয়ানমারের দাবি

সীমান্ত চৌকিতে হামলায় ইসলামী গোষ্ঠী দায়ী

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সীমান্ত চৌকিতে হামলায় ইসলামী গোষ্ঠী দায়ী

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মংনি গ্রামে টহল দিচ্ছে সীমান্ত পুলিশ। গতকাল শনিবার তোলা ছবি। ছবি : এএফপি

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকায় সীমান্ত পুলিশের চৌকিতে হামলার জন্য ইসলামী জঙ্গিদের অনুপ্রাণিত একটি গোষ্ঠীকে দায়ী করেছে দেশটির সরকার। গত রবিবারের ওই ঘটনার পর সরকারপক্ষ সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের মধ্য থেকে নতুন বিদ্রোহ শুরুর আশঙ্কা করছে।

গত শুক্রবার দেশটির কর্মকর্তারা এসব কথা বলেন।

মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট থিন কিয়াওয়ের কার্যালয় থেকে দেওয়া বিবৃতিতে মংডু শহরের কাছে চালানো ওই হামলার জন্য ‘আকামুল মুজাহিদিন’ নামের এক গোষ্ঠীকে দায়ী করা হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ধর্মীয় চরমপন্থা ব্যবহার করে তারা তরুণদের প্ররোচিত করেছে। এ ছাড়া তারা বাইরে থেকে আর্থিক সহায়তাও পেয়েছে। ’ এতে আরো বলা হয়, ‘আইএসআইএস (আইএস), তালেবান ও আল-কায়েদার মতো তারাও তাদের ভিডিও ইন্টারনেটে সম্প্রচার করছে। এখন মংডু অঞ্চলে লড়াইরত তাদের ৪০০ বিদ্রোহী আছে। ’

চলতি সপ্তাহে ইন্টারনেটে প্রকাশিত কয়েকটি ভিডিও চিত্রে অস্ত্রধারীদের রোহিঙ্গাদের ভাষায় কথা বলতে দেখা গেছে। এসব ভিডিওর সত্যাসত্য যাচাই করা যায়নি। তবে মিয়ানমারের সরকারি কর্মকর্তারা বলেছেন, এসব ভিডিওতে ৯ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষে জড়িত হামলাকারীদের দেখা গেছে বলে তাঁদের বিশ্বাস।

রাখাইন রাজ্যে শুরু হওয়া এ সহিংসতা অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন সরকারের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দিয়েছে। কেননা রোহিঙ্গা ও অন্যান্য মুসলিমদের অধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থতার অভিযোগে ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিকভাবে সমালোচনার মুখে পড়েছে দেশটির ছয় মাস বয়সী এ সরকার। গত ৮ নভেম্বর মিয়ানমারে অবাধ গণতান্ত্রিক নির্বাচনে বড় ধরনের জয় পেয়ে এ বছর এপ্রিলে সরকার গঠন করেছে সু চির দল। সূত্র : বিডিনিউজ।


মন্তব্য